করোনার জেরে ঘোর সঙ্কটে সার্কাস শিল্পীরা, হাসতে ভুলে গিয়েছে জোকাররাও

0
50

শুভম বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতাঃ

করোনার করাল থাবা ঘোর সঙ্কটে ফেলে দিয়েছে সার্কাসের সংসারকেও। শো তো বন্ধ বটেই, এমনকি লকডাউনে আটকে গিয়ে দানাপানি জোটানোই কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে বাংলার দুটি নামী সার্কাস কোম্পানি অজন্তা ও এম্পায়ার সার্কাসের শিল্পী, কলাকুশলীদের।

circus | newsfront.co
প্রতীকী চিত্র

সরকারি নিয়মে বাঘ, সিংহ, হাতি-র মতো জীবজন্তদের এখন রাখার নিয়ম নেই। না হলে অবস্থা আরও করুণ হতো, এমনটাই দাবি সার্কাস মালিকদের। তবে অনুমতি সাপেক্ষে কিছু জীবজন্তু রয়েছে। আর রয়েছেন সার্কাস শিল্পীরাও।

আরও পড়ুনঃ করোনা যুদ্ধে সামিল হয়ে দুঃস্থদের সাহায্যে এলেন সতীশ ময়রা

এই মুহূর্তে বাংলা ও বিহার সীমান্তে কৃষ্ণগঞ্জে আটকে রয়েছেন অজন্তা সার্কাসের শিল্পী, কলাকুশলীরা। অন্যদিকে উত্তর ২৪ পরগনার হাড়োয়াতে আটকে রয়েছে এম্পায়ার সার্কাস। লক ডাউনের জেরে ৩ মে পর্যন্ত এখানেই থাকতে হবে তাদের।

অজন্তা সার্কাসের মালিক রবিউল হক জানিয়েছেন, ” কৃষ্ণগঞ্জে গত ৮ মার্চ থেকে আমাদের দল আটকে রয়েছে। গোটা মার্চ মাসে এক পয়সাও রোজগার হয়নি। এদিকে দৈনন্দিন থাকা খাওয়া নিয়ে খরচ ৪৫ হাজার টাকার কাছাকাছি। আমার দলে খেলোয়াড়, কর্মী মিলে ৬০ জন রয়েছেন। এছাড়াও কয়েকটা কুকুর, পাখি রয়েছে। এ মাসে সবার পুরো মাইনে দিতে পারিনি। জানি না কবে লকডাউন উঠবে। কবে কি হবে।’

উত্তর ২৪ পরগনার হাড়োয়ায় গত ২৫ দিন ধরে আটকে রয়েছেন এম্পায়ার সার্কাসের শিল্পী, কলাকুশলী,কর্মীরা।এছাড়াও রয়েছে ৫ থেকে ১০ বছরের ৫ টি শিশু। সার্কাসের ম্যানেজার জাহাঙ্গীর মোল্লা জানালেন,’আমরা খুব বিপদের মধ্যে রয়েছি। লকডাউনে আটকে পড়ে আমাদের রসদ ফুরিয়ে আসছে। আমাদের কোম্পানিতে ৪০ জন রয়েছেন, ৫টি ছোট ছোট বাচ্চাও রয়েছে। জানি না এভাবে কতদিন চলবে।’

আরও পড়ুনঃ চোলাই কারবারি নিয়ে উদ্বেগ পুলিশের

স্থানীয় ব্লক ডেভেলপমেন্ট অফিসার ও পঞ্চায়েত প্রধান ফরিদ জামাদ এই বিপদের মুহূর্তে সার্কাস কোম্পানির পাশে দাঁড়িয়েছেন। ফরিদ জানালেন, ‘ আমরা গ্রামবাসীরা কয়েক সপ্তাহ ধরে ওঁদের খাবারদাবার জোগান দিচ্ছি।

ওঁরা আমাদের আনন্দ দিতে এখান এসেছেন, এই দুঃসময়ে ওঁদের পাশে তো দাঁড়াতেই হবে।’ ভাঙা তাঁবু কয়েকটা তারপোলিনের মাথা গোঁজার ঠাঁই। একপাশে মনমরা এই সার্কাসে ২৪ টা বসন্ত কাটানো জোকার আসরফ। ম্লান গলায় বললেন, ‘ এতো বছর কেটে গেল, কখনো ভাবিনি এমন দিন আসবে।

জানি না, কবে এরেনায় ফিরবো। লক ডাউন উঠলে বাড়ি যাবেন না। আর যাবেনই বা কোথায়! তাদের জীবনে যে ধ্রুব সত্য রাজ কাপুরের বিখ্যাত সিনেমার গানের লাইন ‘জিনা ইঁহা মরনা ইঁহা / ইসকে সিবা জানা কাঁহা. . . . .

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91 94745 60584

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here