সিএএ নিয়ে এনডিএ শরিকদের মতামত নেওয়া হয়নি, অসন্তুষ্ট নরেশ গুজরাল

0
40

নিউজফ্রন্ট, ওয়েবডেস্কঃ

সিএএ নিয়ে একটি বিষ্ফোরক মন্তব্য করলেন এনডিএ(ন্যাশনাল ডেমোক্র্যাটিক অ্যালায়েন্স) শরিক শিরোমণি আকালি দলের (এসএডি) নেতা ও সাংসদ নরেশ গুজরাল।

Naresh Gujral | newsfront.co
নরেশ গুজরাল। চিত্র সৌজন্যঃ হিন্দুস্তান টাইমস

তাঁর দাবি, দেশে সিএএ লাগু করার মতো এত বড় সিদ্ধান্ত নিয়ে শরিকদের সঙ্গে কোনও আলোচনাই করেনি বিজেপি। এতে এনডিএ-র বেশির ভাগ সদস্যই অসন্তুষ্ট বলে জানা গিয়েছে।

একটি জাতীয় গণমাধ্যমকে দেওয়া একটি বিবৃতিতে এ দিন আকালি দলনেতা নরেশ গুজরাল বলেন, ‘‘এটা দুর্ভাগ্যজনক যে এনডিএ-তে এ নিয়ে আলোচনা হয়নি। এটা আরও দুর্ভাগ্যজনক যে কারও মতামত পর্যন্ত নেওয়া হয়নি। এই কারণে এনডিএ শরিকরা খুশি নয়।’’

আরও পড়ুনঃ এনআরসি নিয়ে রাতারাতি দিলীপের মত বদলে চাঞ্চল্য রাজনৈতিক মহলে

এ নিয়ে বিজেপিকে যেমন সাবধান করেছেন নরেশ বাবু, পাশাপাশি মনে করিয়ে দিয়েছেন অটলবিহারী বাজপায়ীর জোটধর্ম পালনের কথাকে। তিনি জানান, ‘‘আমি বিভিন্ন সময়ে, বার বার বলেছি যে, আমাদের বাজপায়ীর দেখানো পথে চলা উচিত।

আপনারা মনে করতে পারবেন বাজপায়ীজি অন্তত ২০টি দলকে নিয়ে জোট সরকার চালিয়েছিলেন। তা সত্ত্বেও প্রত্যেকে খুশি ছিল, কারণ প্রত্যেককে সম্মান দেওয়া হতো। তাঁদের প্রত্যেকের সঙ্গে সমান ব্যবহার করা হতো।’’ বাজপেয়ীর শাসনকালেও এনডিএ-র শরিক ছিল এসএডি।

সিএএ-এনআরসি নিয়ে গোটা দেশ উত্তাল। ফলে অনেক বিজেপি সাংসদই বিজেপি সাম্রাজ্যের নড়বড়ে মসনদের কথা আঁচ করতে পেরেছেন।

আরও পড়ুনঃ রাজ্যপালের বিরুদ্ধে মমতাকে রাষ্ট্রপতির দরবারে যাওয়ার পরামর্শ অধীরের

চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহেই উত্তরপ্রদেশের প্রায় ১০০ জন সাংসদ, সংসদে ধর্ণায় বসেছিলেন। গতকাল বিজেপির পশ্চিমবঙ্গ শাখার রাজ্য সহ-সভাপতি চন্দ্রকুমার বসুও টুইটে সিএএ-তে মুসলমানদের অন্তর্ভুক্ত না করা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। এই অবস্থায় এনডিএ শরিক নরেশ গুজরালের এমন বক্তব্যে রাজনৈতিক মহলে অনেকরকম কথা উঠছে।

এ দিন নরেশ বাবু প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী অরুন জেটলির কথা প্রসঙ্গে বলেন, ‘‘তিনি যত দিন জীবিত ছিলেন আমি বলতাম, আলোচনার রাস্তা খোলা রয়েছে। একজন অন্তত ছিলেন যাঁর কাছে যাওয়া যেত। দুর্ভাগ্যজনক ভাবে তাঁর মৃত্যুর পর সেই রাস্তাও আরও কাজ করছে না।’’

লোকসভায় এনডিএ-র হাতে রয়েছে ৩৫৩টি আসন। যার মধ্যে একা বিজেপির কাছেই রয়েছে ৩০৩ আসন। মাত্র দু’জন সাংসদ রয়েছে শিরোমণি আকালি দলের।

তাহলে কি সংখ্যা গরিষ্ঠতার কারণে শরিকদের সাথে সিএএ নিয়ে আলোচনা করার প্রয়োজন মনে করেনি বিজেপি—কথা উঠছে। নরেশ বাবু অসন্তোষ প্রকাশ করে এও বলেন যে এনডিএ-র বাকি সদস্যদের কেউই এই আইন নিয়ে খুশি নন। তাদের অখুশি হওয়ার আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ কারণ হল সময়ে সময়ে বৈঠক না হওয়া। এসব নিয়েই সংশোধন প্রয়োজন বলে মনে করছেন এনডিএ শরিক।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91-9593666485