রেড রোডে পুলিশ কুচকাওয়াজের মাঝে ফের বেপরোয়া গাড়ির ধাক্কা, ধৃত সাংবাদিকতার ছাত্র

0
13

শুভম বন্দ্যোপাধ্যায় কলকাতাঃ

আর একটু হলেই যেন হতে যাচ্ছিল ২০১৬ সালের ১৩ জানুয়ারি বুধবার ভোর সকালের সেই মর্মান্তিক ঘটনার পুনরাবৃত্তি। স্বাধীনতা দিবসের আগে ফের পুলিশের কুচকাওয়াজ চলার সময় বেপরোয়া গাড়ি ঢুকে পড়ল রেড রোডে। পর পর গার্ড রেলে ধাক্কা মেরে ল্যাম্পপোস্টে ধাক্কা মেরে থেমে গেল সেই গাড়ি। মঙ্গলবার সকালের এই ঘটনায় গ্রেফতার করা হয়েছে গাড়ি চালক ১৯ বছরের সাংবাদিকতার ছাত্র অরিত্র সান্যালকে। তার বাড়ি গড়িয়াহাটের বন্ডেল রোডে।

Car | newsfront.co
দুর্ঘটনাগ্রস্থ গাড়ি। নিজস্ব চিত্র

প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালে এই ভাবেই বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালিয়ে প্রজাতন্ত্র দিবসের সেনা কুচকাওয়াজের মহড়া চলার সময় ঢুকে পড়েছিল একটি গাড়ি। সেই গাড়ির ধাক্কায় প্রাণ গিয়েছিল অভিমন্যু গৌড় নামে এক বায়ুসেনা কর্মীর। ঘটনায় সাম্বিয়া সোহরাব নামে এক যুবককে গ্রেফতার করা হলেও বছর দুয়েক পরে ছাড় পান তিনি। তারপর থেকে রেড রোডে কোনও মহড়া থাকলেই বাড়িয়ে দেওয়া হয় পুলিশ প্রহরা এবং গার্ড রেল।

পুলিশের দাবি, তার ফলেই এ দিন কোনো প্রাণহানি কর দুর্ঘটনা ঘটেনি। এমনিতেই করোনা আবহে খুব ছোট করে সামান্য একটি কুচকাওয়াজ করা হতো স্বাধীনতা দিবসে। মঙ্গলবার সকালে তারই মহড়া চলছিল। তার মধ্যেই ঘটে এই দুর্ঘটনা।

আরও পড়ুনঃ বেলেঘাটায় ব্যবসায়ীকে গুলি করে খুনের চেষ্টা দুষ্কৃতীর

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার সকাল পৌনে ৭টা নাগাদ খিদিরপুর রোড ধরে নীল রঙের একটি সেডান দ্রুত গতিতে এগিয়ে আসে রেড রোডের দিকে। রাস্তায় থাকা পুলিশ কর্মীরা গাড়িটি থামানোর চেষ্টা করলেও, চালক কর্ণপাত না করে আরও গতি বাড়িয়ে এগিয়ে যান দক্ষিণ থেকে উত্তরের দিকে। ওই সময়ে রেড রোডে স্বাধীনতা দিবসের কুচকাওয়াজের মহড়া দিচ্ছিলেন পুলিশকর্মীরা। গাড়িটি জেকে আইল্যান্ডের কাছে এসে পৌঁছলে চালক দেখেন গার্ড রেল দিয়ে রাস্তা বন্ধ।

আরও পড়ুনঃ বিশ্বে প্রথম করোনা ভ্যাকসিন নিয়ে এল রাশিয়া, পুতিন কন্যার উপর প্রথম প্রয়োগ

পুলিশের অভিযোগ, গাড়িটির গতি এতটাই বেশি ছিল যে চালক গার্ড রেল দেখেও গাড়িটি থামাতে পারেননি এবং নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গার্ড রেলে সজোরে ধাক্কা মারেন। পুলিশ জানিয়েছে, তার আগে কলকাতা পুলিশের একটি বাসেও ধাক্কা মারে গাড়িটি।

ঘটনাস্থলে থাকা পুলিশকর্মীরা সঙ্গে সঙ্গে চালককে গাড়ি থেকে উদ্ধার করে আটক করেন। গাড়িটি বাজেয়াপ্ত করে ময়দান থানার পুলিশ। বেপরোয়া গাড়ি চালিয়ে মানুষের জীবন বিপদে ফেলার অভিযোগে ওই ছাত্রের বিরুদ্ধে ভারতীয় দন্ডবিধির ২৭৯ এবং ৪২৭ নম্বর ধারায় মামলা দায়ের করেছে পুলিশ।

পুলিশ ওই তরুণকে জেরা করে জানতে পেরেছে, তিনি ভুবনেশ্বরের একটি বেসরকারি কলেজে সাংবাদিকতা পড়েন। গাড়িটি তাঁর মা সুলগ্না সান্যালের নামে নথিভুক্ত। ২০১৮ সালের জানুয়ারি মাসে কেনা। মাত্র ৮ মাস আগে ড্রাইভিং লাইসেন্স পেয়েছেন ওই তরুণ। সকালের ফাঁকা রাস্তায় দ্রুতগতিতে গাড়ি চালিয়ে মজা করছিলেন তিনি। শেষ পর্যন্ত নিয়ন্ত্রণে রাখতে না পেরে দুর্ঘটনা ঘটান।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91-9593666485