খোদ কলাভাবনের পড়ুয়াদের কন্ঠে রবীন্দ্রসঙ্গীতের বিকৃত সুর

0
21

পিয়ালী দাস, বীরভূমঃ

প্রখ্যাত চিত্রশিল্পী নন্দলাল বসুর নামাঙ্কিত মেলার আয়োজন চলছে বিশ্বভারতীর কলাভবন জুড়ে। সেখানে হাজির ছিলেন বিশ্বভারতীর একাধিক অধ্যাপক-অধ্যাপিকা, প্রবীণ আশ্রমিক, বিভিন্ন জায়গা থেকে আগত পর্যটক। সব কিছুই চলছিল রবীন্দ্র সংগীত সুর অনুযায়ী, হঠাৎই সুরের ছন্দের তাল কেটে গেল কলাভবনের কিছু পড়ুয়াদের বিকৃত গানের সুরে বিশ্বভারতী সাক্ষী রইল অত্যন্ত ন্যাক্কারজনক ঘটনার।

সংবাদ চিত্র

এরপর বিকৃত রবীন্দ্র সংগীতের ভিডিওটি সোশ্যাল সাইটে পোস্ট করে দেওয়া হয় বিশ্বজুড়ে ওঠে নিন্দার ঝড় শিক্ষার প্রসার বিশ্বের দরবারে ছড়িয়ে দিতে গুরুদেব রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর খ্যাতি অর্জন করেছিলেন সেই গুরুদেবের গান বিকৃত সুরে গেয়ে কলাভবনের ছাত্র-ছাত্রীরা গুরুদেবকে মাটিতে মিশিয়ে দিয়েছে প্রতিবাদে সোচ্চার হয়েছে বিশ্বভারতীর আশ্রমিকরা।

বিশ্বভারতী প্রাক্তন উপাচার্য নন্দলাল বসুর জন্মদিনে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের লেখা চাঁদ উঠেছিল গগনে গানটিকে বিকৃত সুরে গেছে কলাভবনের ছাত্র-ছাত্রীরা মেনে নিতে পারছেন না অধ্যাপক নিখিলেশ চৌধুরী তিনি জানিয়েছেন দুঃস্বপ্নে এই ধরনের কর্মকাণ্ড করার কথা কোন সুস্থ মানসিকতার মানুষ ভাবতে পারে না। রবীন্দ্রসঙ্গীত বিকৃত করে গান করা মানে গুরুদেব রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে অসম্মান এবং অবমাননা করা এটা বিশ্বভারতীর পরিপন্থী নয়। যে আদর্শ নিয়ে বিশ্বভারতীতে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ছাত্র-ছাত্রীরা পড়তে আসেন তাদের কাছে এই ধরনের সংস্কৃতি কাম্য নয়।

ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন বিশ্বভারতীর আশ্রমিক সুবোধ মিত্র। তিনি জানিয়েছেন লজ্জায় মুখ লুকোবার স্থান সংকুলান হচ্ছে না ভাবতে অবাক লাগছে নতুন প্রজন্ম রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে জানার কোনো চেষ্টাই করছে না বিশ্বভারতীতে পড়াশোনা করতে আসা মানে শিক্ষার মন্দিরে গুরুদেবের পুজো করা সেখানে কলাভবনের ছাত্র-ছাত্রীরা গুরুদেবের লেখা চাঁদ উঠেছিল গগনে গানটিকে ন্যাক্কারজনক ভাবে বিকৃত করেছে প্রতিপক্ষের উচিত অবিলম্বে এই ধরনের ছাত্রছাত্রীকে চিহ্নিত করে শাস্তি দিয়ে বিশ্বকে বার্তা দেওয়া উচিত গুরুদেবের মানসম্মান নষ্ট করলে বিশ্বভারতী তা কোনোভাবেই রেয়াত করে না।

কিন্তু অন্যায়ের শাস্তি দেবে কে? যিনি দেবেন সেই বিশ্বভারতীর উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী নিজের খামখেয়ালিপনার জেরে ইতিমধ্যে বিশ্বের দরবারে এক অনন্য স্থান করে নিয়েছেন বিশ্বভারতীর ভালো-মন্দ নিয়ে তার কিছু আসে যায় না নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিশ্বভারতীর এক আধিকারিক জানান পরিবারের মাথা যদি লাগামহীন আচরণ করে তাহলে পরিবারের অন্য বাকি সদস্যরাও একইরকম আচরণে শামিল হবে বর্তমানে বিশ্বভারতীতে সেটাই ঘটছে যা অত্যন্ত লজ্জাজনক ও দুঃখজনক।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91-9593666485