বৃহত্ত-ঐতিহ্য-স্থাপত্যের আকর্ষনে আজও মুগ্ধতা আনে আদিনা মসজিদ

0
204

প্রীতম সরকার

কিছুদিন আগেও আদিনা ছিল ভারতীয় উপমহাদেশের সবচেয়ে বড় মসজিদ। যদিও এখন আদিনার চেয়েও বড় মসজিদ তৈরি হয়ে গিয়েছে। তবুও ১৩৭৩ সালে সুলতান সিকন্দর শাহর তৈরি এই মসজিদের ঐতিহ্য এতটুকু কমেনি। ইলয়াস শাহি বংশের দ্বিতীয় সুলতান ছিলেন সিকন্দর শাহ।

Adina masjid | newsfront.co
ছবিঃ প্রতিবেদক

ইতিহাসের তথ্য অনুযায়ী, খুব দাপটের সঙ্গে তিন দশক রাজত্ব করেছিলেন তিনি। এমনকী, দিল্লির বাদশাহ ফিরোজ শাহ তুঘলককে যুদ্ধে পরাজিত করেছিলেন তিনি। অনেক ঐতিহাসিকের মতে, এই সাফল্যকে স্মরণীয় করে রাখতেই সুলতান এই মসজিদটি তৈরি করেছিলেন। সিকন্দর শাহ ছিলেন খুব উচ্চাকাঙ্ক্ষী সুলতান।

historical place | newsfront.co
ছবিঃ প্রতিবেদক

তাই বাগদাদ বা দামাস্কাসের মতো মসজিদ তিনি বানাতে চেয়েছিলেন তাঁর নিজের রাজত্বে। তার ফলশ্রুত হলো মালদহের এই আদিনা মসজিদ। সামনাসামনি দেখলে বোঝা যাবে, আদিনা মসজিদ কতটা জায়গা নিয়ে ছড়িয়ে রয়েছে। তবে এখন আর মসজিদের পুরো রূপ আর পুরোপুরি দেখার উপায় নেই। মালদহে দু দু-বার ভূমিকম্পে মসজিদটি অনেকটাই ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।

Adina Masjid | newsfront.co
ছবিঃ প্রতিবেদক

দামাস্কাসের উমাইয়াদ মসজিদের আদলে নির্মিত মসজিদটির স্থাপত্য সত্যি তারিফের যোগ্যতা রাখে। উমাইয়াদ মসজিদের মতোই আদিনার আকারও আয়তক্ষেত্র। সামনে অনেকটা ফাঁকা জায়গা রয়েছে।

tourist place | newsfront.co
ছবিঃ প্রতিবেদক
torist place | newsfront.co
ছবিঃ প্রতিবেদক

শুধু তাই নয়, আদিনা মসজিদের আকার ও প্রার্থনা কক্ষ দেখলে আন্দাজ করা যায়, সিকন্দর শাহ কতটা যত্ন নিয়ে এই মসজিদটি বানিয়েছিলেন। শুধু মালদহ নয়, আদিনা মসজিদ এখন রাজ্য তো বটেই, গোটা দেশের এক সেরা ভ্রমনস্থল হিসাবে পরিচিতি লাভ করেছে।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91 94745 60584

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here