রামমন্দির নির্মাণে অর্থের অভাব হবে না, জানালেন মহন্ত নৃত্য গোপাল দাস

0
73

মোহনা বিশ্বাস, ওয়েব ডেস্কঃ

রাম জন্মভূমিতে বাবরি মসজিদ তৈরি নিয়ে যে সমস্যার সৃষ্টি হয়েছিল, তা সকলেরই জানা। এবার শ্রী রাম জন্মভূমি তীর্থ ক্ষেত্র ট্রাস্টের চেয়ারম্যান মহন্ত নৃত্য গোপাল দাস যা তথ্য দিলেন তাতে হতবাক সকলে। সোমবার মহন্ত দাবি করেন, অযোধ্যার রাম জন্মভূমিতে কোনোকালেই বাবরি মসজিদ ছিল না। সেখানে বাবরি মসজিদের কোনো অস্তিত্ব নেই। তাঁর মতে, অযোধ্যার ওই জমিতে প্রাচীণকাল থেকে রাম মন্দিরই ছিল। প্রায় ২৮ বছর পরে প্রায় ২৮ বছর পরে আবার রাম জন্মভূমি দর্শনে এলেন মহন্ত নৃত্য গোপাল দাস।

Mahanta Nrita Gopal Das | newsfront.co
মহন্ত নৃত্য গোপাল দাস। ছবিঃ এএনআই

এদিন রাম জন্মভূমি ঘুরে দেখার পর তিনি জানিয়েছেন, নতুন রামলালা মন্দির নির্মাণের জন্য মাটি খুঁড়ে যে সমস্ত প্রাচীন সামগ্রী পাওয়া গিয়েছে, তাতে বাবরি মসজিদের কোনও ঐতিহাসিক অস্তিত্বের প্রমাণ মেলেনি। রাম জন্মভূমিতে এখন জমি সমান করার কাজ চলছে। এই প্রক্রিয়ায় মাটির গভীর থেকে বহু পুরাকীর্তি খুঁজে পাওয়া গিয়েছে, যা প্রাচীন রাম মন্দিরের অস্তিত্ব প্রমাণের সহায়ক। এর থেকেই বোঝা যায় যে, সেখানে বরাবর রাম মন্দিরই ছিল এবং বাবরি মসজিদ কোনোদিনই সেখানে ছিল না।

আরও পড়ুনঃ সিএএ-বিরোধী কর্মী শারজিল ইমামের আবেদনের ভিত্তিতে চার রাজ্যকে নোটিশ জারি সুপ্রিম কোর্টের

মহন্ত আরও জানিয়েছেন যে, মন্দির নির্মাণের জন্য অর্থের কোনও অভাব হবে না। করোনা সংক্রমণের জেরে দেশজুড়ে যে দীর্ঘমেয়াদী লকডাউন চলছে, তা উঠে গেলেই এই জমিতে এসে শ্রদ্ধা জানাতে পারবেন ভক্তরা। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে গত ১১ মে থেকে অযোধ্যার এই জমিতে নতুন রামলালা মন্দির নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে। নতুন মন্দির নির্মাণের কাজ শুরু হওয়ার আগে রাম মন্দিরের আরাধ্য দেবতা রামলালার মূর্তি গর্ভগৃহ থেকে একটি অস্থায়ী মন্দিরে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ রাজ্যগুলিকে করোনা পরীক্ষার খরচ কমাতে নির্দেশ কেন্দ্রের

সেই অনুষ্ঠানের নেতৃত্ব দিয়েছেন স্বয়ং উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। মন্দির নির্মাণের দায়িত্বে রয়েছে লারসেন অ্যান্ড টুব্রো। তাঁরা সয়েল টেস্ট ইত্যাদি প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ করে মন্দির নির্মাণের কাজ শুরু করেছেন। ট্রাস্টের এক সদস্য জানান, এই কাজ বিনামূল্যে করছে লার্সেন অ্যান্ড টুব্রো। লকডাউন মিটলে ভক্তরা রাম জন্মভূমিতে গিয়ে শ্রদ্ধা জানাতে পারবেন বলেই আশা করা যায়। ততদিনে মন্দির নির্মানের কাজও কিছুটা এগিয়ে যাবে।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91 94745 60584

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here