আপনজনদের অত্যাচারে রাস্তাতেই আশ্রয় বৃদ্ধের

0
21

নিজস্ব সংবাদদাতা,পশ্চিম মেদিনীপুরঃ

পরিবারে আছে সবাই,কিন্তু তবুও কোথাও জোটেনি আশ্রয়।থাকার জায়গায় জুটত ভাগ্নে ও ভাগ্নের মেয়ের হাতে মার।

Torture of old man | newsfront.co
নিজস্ব চিত্র

গত ১৫ বছর একটি ঘরে বন্ধ করে রাখার অভিযোগও উঠেছে ভাগ্নের পরিবারের সদস্যদের বিরূদ্ধে।কোনো ভাবে সেখান থেকে পালিয়ে বর্তমানে ৮০ বছরের বৃদ্ধ রমেশ চন্দ্র গুইনের আশ্রয় হয়েছে খোলা আকাশের তোলায়।গতকাল রাতে অসুস্থ অবস্থায় রাস্তার ধারে পড়ে ছিলেন এই বৃদ্ধ।

অবশেষে শহরের তিন যুবকের মানবিকতায় এগিয়ে মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে রমেশ বাবুকে।বর্তমানে চিকিৎসাধীন রমেশ বাবু,তাকে জিজ্ঞেস করতেই দেখা গেল বৃদ্ধের দুচোখ ভরা জল আর শোনা গেল বুক ভরা বেদনা যন্ত্রণা।

Torture of old man | newsfront.co
রাস্তা থেকে আনা হচ্ছে বৃদ্ধকে।নিজস্ব চিত্র

জানা গেল,বৃদ্ধের বাড়ি বাঁকুড়ায়।ছেলে শুভেন্দু গুইন নাকি বাঁকুড়া আদালতের আইনজীবী।কিন্তু ছেলে বৌমার সংসারে ঠাঁই হয়নি এই বুড়ো বাপের জন্য।

আরও পড়ুনঃ মদ্যপ যুবকদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ এলাকা,অভিযোগ দায়ের থানায়

Torture of old man | newsfront.co
নিজস্ব চিত্র

তাই বৃদ্ধ বয়সে মাথা গোঁজার জন্য ভরসা ছিল ভাগ্নে মেদিনীপুরে মহাতাবপুরের বাসিন্দা স্বপন মল্লিকের উপর।কিন্তু সেখানেও দু মুঠো ভাতের সঙ্গে জুটত লাথি, ঘুষি ও লাঠির ঘা।তাই ভয়ে আতঙ্কে সেখান থেকে পালিয়ে জীবন বাঁচানোর কথা ভেবেছিলেন রমেশ চন্দ্র গুইন।

অবশেষে মেদিনীপুর কোতওয়ালী পুলিশের পরামর্শে সুদীপ দে,সেক ইয়াসিন ও মুস্তারুল হক নামে শহরের তিন যুবক শহরের বটতলা থেকে অসুস্থ অবস্থায় রমেশ চন্দ্র গুইনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে।শত কষ্ট অত্যাচারের পর, ছেলে বা ভাগ্নে কারো কাছে যাওয়ার সাহস আর নেই বৃদ্ধ রমেশ চন্দ্র গুইনের।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91-9593666485