Weather Update: জোড়া ঘূর্ণাবর্তের জের, রবিবার থেকেই দক্ষিণবঙ্গে বৃষ্টির পূর্বাভাস আবহাওয়া দফতরের

0
13

মোহনা বিশ্বাস, কলকাতাঃ

বঙ্গোপসাগরে ইতিমধ্যেই একটি ঘূর্ণাবর্ত শক্তি বাড়িয়ে গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে। রবিবারই তা ওড়িশা উপকূলে আছড়ে পড়তে পারে বলে জানিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। অপরদিকে, পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগরে শনিবার আরও একটি ঘূর্ণাবর্ত তৈরির সম্ভাবনা রয়েছে। যা মঙ্গলবারের মধ্যে ওড়িশা উপকূলের আছড়ে পড়তে পারে। এই দুই ঘূর্ণাবর্তের যোগেই রবিবার থেকে দক্ষিণবঙ্গে ফের বৃষ্টির পূর্বাভাস আবহাওয়া দফতরের।

Depression
প্রতীকী চিত্র

হাওয়া অফিস সূত্রে খবর, জোড়া ঘূর্ণাবর্তের জেরে রবিবার পূর্ব মেদিনীপুরে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গের বাকি জেলাগুলিতেও হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস। সোমবার ভারী বৃষ্টির সর্তকতা রয়েছে পূর্ব মেদিনীপুর, পশ্চিম মেদিনীপুর, দক্ষিণ ২৪ পরগনায়। রবিবার কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গের বাকি জেলাগুলিতে মেঘলা আকাশ। উত্তর ২৪ পরগনা, কলকাতা, হাওড়া ও হুগলিতে রবিবার থেকেই হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টির পূর্বাভাস আলিপুর আবহাওয়া দফতরের।

মঙ্গলবার কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গের প্রায় সব জেলাতেই বিক্ষিপ্তভাবে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। এদিন ভারী বৃষ্টির সর্তকতা কলকাতা, হাওড়া, হুগলি, উত্তর ২৪ পরগনা, দক্ষিণ ২৪ পরগনা, পূর্ব মেদিনীপুর, পশ্চিম মেদিনীপুর, বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, ঝাড়গ্রামে। বাকি জেলাগুলিতেও বৃষ্টির পরিমাণ অনেকটাই বাড়বে।

আরও পড়ুনঃ পজিটিভিটি রেট ১.৭৭ শতাংশ, রাজ্যে একদিনে করোনার বলি ১৩

প্রবল বৃষ্টির কারণে দক্ষিণবঙ্গের সমস্ত নদীর জলস্তর বাড়বে। নীচু এলাকায় জল ঢোকার সম্ভাবনাও রয়েছে। তাই আগাম ত্রাণ শিবির তৈরি রাখতে বলা হয়েছে। জেলা প্রশাসনকেও সতর্ক করা হয়েছে। মৎস্যজীবীদের জন্য সর্তকতা জারি করেছে আবহাওয়া দফতর। এই পরিস্থিতিতে শনিবার থেকে মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে মাছ ধরতে না যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছে হাওয়া অফিস। যে মৎস্যজীবীরা ইতিমধ্যেই সমুদ্রে মাছ ধরতে চলে গেছেন, তাঁদের শনিবারের মধ্যে ফিরে আসতে বলা হয়েছে হাওয়া অফিসের তরফ থেকে।

আরও পড়ুনঃ পিএম-কেয়ার্স ফান্ড সরকারি নয়, আদালতে হলফনামা দিয়ে জানাল প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর

সম্প্রতি লাগাতার বৃষ্টির জেরে জলমগ্ন হয়ে গেছে কলকাতার বহু জায়গা। শহরের বিভিন্ন জায়গায় উঠে এসেছে জলযন্ত্রণার চিত্র। এই পরিস্থিতির ফের ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা থাকায় আগে থেকেই প্রস্তুতি নিচ্ছে লালবাজার। শনিবার রাত ১২টা থেকে শুরু সর্বক্ষণের কন্ট্রোল রুম। পুলিশের পাশাপাশি দমকল, কেএমসি, সিইএসসি এনডিআরএফ, পিডব্লুডি এবং বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর কর্তারা থাকবেন বলে সূত্রের খবর।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91 94745 60584

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here