বাইক চেকিংয়ের নামে হয়রানির অভিযোগ, শিলিগুড়ি মহকুমার মুরালিগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে স্থানীয়দের ধস্তাধস্তি

0
34

নিজস্ব সংবাদদাতা, দার্জিলিংঃ

শনিবার শিলিগুড়ি মহকুমার ফাঁসিদেওয়ার ব্লকের বিধাননগরের মুরালিগঞ্জ চেকপোস্টে বাইক চেকিং চালায় পুলিশ। এরপর বেশকিছু বাইক আটক করে ফাইন করা হয়। যদিও স্থানীয়দের অভিযোগ বাইকের যাবতীয় কাগজপত্র ঠিক থাকার পরেও হয়রানি করায় পুলিশ।

people | newsfront.co
নিজস্ব চিত্র

বেশি করে ফাইন করে, কাগজ দেখানোর পরেও। এরপরেই এদিন ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন স্থানীয়রা। এবং স্থানীয়রা ও বিধাননগর ১ নং গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রাক্তন উপপ্রধান পিজুষ সিং যখন পুলিশ কর্মীদের সঙ্গে কথা বলেন তখন এই খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যায় বিধাননগর থানার ওসি মানস দাস। এর পরেই স্থানীয়দের সাথে পুলিশের তর্ক বিতর্ক শুরু হয়। এবং ধস্তাধস্তি শুরু হয় পুলিশ ও স্থানীয়দের মধ্যে।

locals | newsfront.co
নিজস্ব চিত্র

অপরদিকে স্থানীয়রা ৩১ নং জাতীয় সড়কের উপরে বসে পড়েন। এই ঘটনার জেরে বেশ কিছুক্ষণ জাতীয় সড়কের উপর দিয়ে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। অবশেষে বেশকিছু পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। এই বিষয়ে স্থানীয়দের অভিযোগ যে প্রত্যেকদিন চেকিং করে পুলিশ।

clash | newsfront.co
নিজস্ব চিত্র

আরও পড়ুনঃ বিল মকুবের দাবিতে, ফালাকাটা বিদ্যুৎ দফতরে বিক্ষোভ বিজেপির

এবং প্রত্যেকটি গাড়ি থেকে টাকা তোলে।আর বাইকের সমস্ত কাগজপত্র ঠিক থাকা সত্বেও ফাইন করে হয়রানি করে। এবং এই চেকিং এর কারণে আসে পাশে হোটেলে কোন গাড়ি দাঁড়াতে চায় না। যার কারণে ব্যবসা ঠিকঠাক হয়না।

আরও পড়ুনঃ রাস্তার দাবিতে, তপন-বালুরঘাট রাজ্য সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ স্থানীয়দের

প্রাক্তন উপপ্রধান পিজুষ সিং বলেন যে,”পুলিশকে বাইকের সব রকম কাগজ দেখানোর পরেও পুলিশ ফাইন করছে। আর কিছু জিজ্ঞেস করতে গেলে কথা বলেন না। আর সমস্ত বালির গাড়ি থেকে টাকা তুলছে। আমরা চাই চেকিং হচ্ছে হোক কিন্তু। সাধারণ মানুষের হয়রানি বন্ধ করুক বিধাননগর থানার পুলিশ।”

এই বিষয়ে রুরাল ডিএসপি অচিন্ত্য গুপ্ত বলেন যে, “গোটা বিষয়টি দেখা হচ্ছে। আর এদিন পুলিশের পক্ষে বিশেষ চেকিং চলছিল নিরাপত্তার স্বার্থেই।”

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91 94745 60584

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here