টাকিতে প্রতিমা বিসর্জনে নতুন নিয়ম, নৌকায় উঠতে পারবেন পুজো উদ্যোক্তাদের সর্বোচ্চ ৮ জন

0
14

মোহনা বিশ্বাস, ওয়েব ডেস্কঃ

উত্তর ২৪ পরগণার টাকিতে প্রতিমা বিসর্জনে এবার কড়াকড়ি ব্যবস্থা নেবে প্রশাসন। বিসর্জনের দিন টাকিতে ইছামতী বক্ষে দুই বাংলার মিলন উৎসব হয়। দুই দেশের প্রতিমার বিসর্জন হয় ইছামতীতে। আর তা দেখতে মানুষের ঢল নামে ইছামতীর তীরে। কিন্তু করোনার কথা মাথায় রেখে এবার বিসর্জনের দিন দর্শকদের আর নদী বক্ষে নৌকো নিয়ে নামার অনুমতি দিচ্ছে না পুলিশ। সেদিন দুপুর ১টা থেকে বিকেল ৪টের মধ্যে প্রতিমা বিসর্জন শেষ করতে হবে।

Durga bisorjon

বিসর্জনের সময় একটি নৌকায় পুজো উদ্যোক্তাদের সর্বোচ্চ ৮ জন উঠতে পারবেন। ইছামতীতে প্রতিমা বিসর্জন নিয়ে বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষা বাহিনী, বিএসএফ এবং জেলা প্রশাসনের মধ্যে আগেই একটি বৈঠক হয়। প্রশাসন সূত্রে খবর, ওই বৈঠকেই করোনা বিধি মেনে বিসর্জনের নির্দেশিকা জারির সিদ্ধান্ত হয়।

এই সিদ্ধান্তের কারণে ইছামতীতে এবার দর্শকসংখ্যা কমতে পারে বলে আশঙ্কা স্থানীয় ব্যবসায়ীদের। এবছর বিসর্জনের দিন পর্যটকদের নদীতে নামার অনুমতি দেয়নি প্রশাসন। শুধুমাত্র প্রতিমা বিসর্জনের জন্য ৮ জন করে এক একটি নৌকাতে উঠতে পারবে। এমনটাই নির্দেশ বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষা বাহিনী, বিএসএফ এবং জেলা প্রশাসনের।

আরও পড়ুনঃ ফের বাড়ল পেট্রোল-ডিজেলের দাম, দুর্গাপুজোর প্রাক্কালে মধ্যবিত্তের কপালে চিন্তার ভাঁজ

যদিও প্রশাসনের এই সিদ্ধান্তে খুশি হননি এলাকার ব্যবসায়ীরা। তাঁদের অনেকেরই বক্তব্য, সারা বছর বিসর্জনের দিনটির জন্যই সেখানকার ব্যবসায়ীরা অপেক্ষা করে থাকেন। করোনার কারণে এমনিতেই ব্যবসায় লোকসান হচ্ছে। তার উপরে প্রশাসনের এই বিধিনিষেধের জেরে বিসর্জন দেখতে দর্শক না আসলে মুখথুবড়ে পড়বে সেখানকার ব্যবসা।

আরও পড়ুনঃ রাজ্যে পুজোর পরই স্কুল খোলার চিন্তাভাবনা, স্কুল মেরামতের জন্য বরাদ্দ ১০৯ কোটি টাকা

২০২০ সালেও উত্তর ২৪ পরগণার টাকিতে প্রতিমা বিসর্জনের দিন কড়াকড়ি ছিল সেখানকার ব্যবস্থা। ঘাটে দর্শনার্থীদের ভিড় করতে দেওয়া হয়নি। পশ্চিমবঙ্গের প্রতিমার সঙ্গে সঙ্গে বাংলাদেশের প্রতিমাকেও টাকির ইছামতী নদীতে বিসর্জন দেওয়া হয়। ও পার বাংলার নৌকো  বাংলাদেশের পতাকা লাগিয়ে আসে। কিন্তু এবছর করোনার কারণে দর্শকদের ভিড় করতে দেওয়া হবে না। শুধু তাই নয়, প্রতিমা বিসর্জনের জন্য নৌকায় উঠতে পারবেন পুজো উদ্যোক্তাদের সর্বোচ্চ ৮ জন। ফলে আগে প্রতিমা নিরঞ্জনে দুই দেশের মিলন উৎসব আর দেখা যাবে না। ওইদিন জৌলুস হারাবে ইছামতী।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91 94745 60584

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here