দেড়মাস বাদে সোমবার থেকে আউটডোর খুলছে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজে, দ্বিধাবিভক্ত চিকিৎসকরা

0
37

শুভম বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতাঃ

রাজ্যের ৬৮তম করোনা হাসপাতাল হিসেবে বিবেচিত হওয়ার পর থেকেই কলকাতা মেডিক্যাল কলেজে বন্ধ হয়ে গিয়েছিল আউটডোর পরিষেবা। প্রায় দেড় মাস বন্ধ থাকার পর আগামী ৮ জুন অর্থাৎ সোমবার থেকে কলকাতা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আউটডোর খোলার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করল স্বাস্থ্য ভবন। তবে পুরোদমে চলা একটি কোভিড হাসপাতালের আউটডোর কিভাবে চালানো হবে, অন্যান্য রোগীদের সংক্রমণের সম্ভাবনা থেকে যাবে কি না, সে নিয়েও চিকিৎসকদের মধ্যে শুরু হয়ে গিয়েছে বিতর্ক।

Kolkata medical | newsfront.co
প্রতীকী চিত্র

কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রায় ৩০০ কোভিড আক্রান্ত ভর্তি রয়েছেন। স্বাস্থ্য ভবন সূত্রের খবর , ইতিমধ্যে আউটডোর খোলার সিদ্ধান্ত স্বাস্থ্য ভবন থেকে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। আর এই সিদ্ধান্ত নিয়ে চিকিৎসকেরা দু’পক্ষে ভাগ হয়ে গিয়েছেন। একদল চিকিৎসকের বক্তব্য, এখনই এই সিদ্ধান্ত না নিয়ে আরও কিছুদিন অপেক্ষা করে আউটডোর খোলা হোক।

আরও পড়ুনঃ নবান্নে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দলকে আমফানে ১ লক্ষ ২ হাজার কোটি টাকার ক্ষতির হিসেব পেশ রাজ্যের

অন্যপক্ষের চিকিৎসকদের বক্তব্য, কোভিড ও সারি ওয়ার্ড আলাদা করে ব্যরিকেড করে অন্য বিভাগ খোলা হোক। গ্রিন বিল্ডিং সুপার স্পেশালিটি বিল্ডিংয়ের করোনা আক্রান্ত এবং সারি (যাঁদের উপসর্গ রয়েছে) রোগীরা রয়েছেন। এই দুই বিল্ডিংকে আলাদা করতে পাঁচিল তুলে দেওয়া হবে। যাতে অন্যদিকে থাকা জরুরি বিভাগ, এমসিএইচ বিল্ডিং এবং এজরা বিল্ডিংয়ে পরিষেবা শুরু করা যাবে। তাতে অনেক রোগী পরিষেবা পাবেন। সব মিলিয়ে করোনা সংক্রমণ এড়িয়ে কী ভাবে আউটডোর খোলা যায় তার পথ বের করতে রোগী কল্যাণ সমিতি, বিভিন্ন বিভাগীয় প্রধান এবং আধিকারিকরা বৈঠকে বসে বেশ কিছু সিদ্ধান্ত নিতে পারেন বলে সূত্রের খবর।
তিন নম্বর গেটের পাশেই রয়েছে মূল আউটডোর বিল্ডিং। মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সূত্রের খবর, কোভিড হাসপাতাল হওয়ার পর অনেক মানুষ চিকিৎসা পাচ্ছেন না। যাঁরা কলকাতা মেডিকেল কলেজের হেমাটোলজি বিভাগ, ক্যান্সার বিভাগ, রেডিওলজি বিভাগ বা অন্যান্য বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিভাগে চিকিৎসা করাতেন, তাঁরা সেগুলি থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। বন্ধ রয়েছে গুরুত্বপূর্ণ কার্ডিওলজি বিভাগ, এমনকি বাইপাস সার্জারির জন্য কার্ডিওথোরাসিক ভাস্কুলার সায়েন্স বিভাগও। অন্যদিকে মেডিকেল কলেজের পড়ুয়াদের পড়াশোনায় সমস্যাও হচ্ছে।

 

সেই সব দিক বিবেচনা করেই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্বাস্থ্যভবন বলে জানা গিয়েছে। প্রসঙ্গত, এতদিনে এটা পরিষ্কার জানা হয়ে গিয়েছে, করোনা সংক্রমণ পুরোপুরি ছেড়ে যাবে না। সেই কারণেই অন্যান্য পরিষেবা থেকে যাতে অন্যান্য রোগীরা বঞ্চিত না হয়, সেই জন্যই এই সিদ্ধান্ত। এতে মেডিক্যাল কাউন্সিল অফ ইন্ডিয়া অর্থাৎ এম সি আই এর নিয়মও রক্ষা হবে হাসপাতাল সূত্রের খবর।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91 94745 60584

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here