করোনা যুদ্ধে অস্ত্রভাণ্ডারের দায়িত্বপ্রাপ্ত শীর্ষকর্তার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ মুখ্যমন্ত্রীর

0
140

শুভম বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতাঃ

কিছুদিন আগেই অসুস্থ হয়ে রাজ্যের সেন্ট্রাল মেডিক্যাল স্টোরের অ্যাসিস্ট্যান্ট ডিরেক্টর ভর্তি হয়েছিলেন সল্টলেকের একটি বেসরকারি হাসপাতালে। পরে তাঁর টেস্ট রিপোর্ট আসে যে, তিনি করোনা পজিটিভ। শনিবার রাত ১ টা ২০ নাগাদ আচমকাই মৃত্যু হল ওই স্বাস্থ্যকর্তার। তার আরও অন্যান্য শারীরিক সমস্যা থাকায় করোনা সংক্রমণেই তাঁর মৃত্যু নাকি অন্য কোনও কারণ রয়েছে, তা খতিয়ে দেখছে রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর।

Mamata Banerjee | newsfront.co
ফাইল চিত্র

প্রসঙ্গত, রাজ্যের সেন্ট্রাল মেডিক্যাল স্টোরের গুরুদায়িত্ব সামলাতেন বেহালার হরিদেবপুরের বাসিন্দা ওই স্বাস্থ্যকর্তা। পিপিই, মাস্ক, স্যানিটাইজার-সহ করোনা মোকাবিলার যাবতীয় সরঞ্জাম শিয়ালদহ মৌলালির ওই স্টোর থেকেই বিভিন্ন হাসপাতাল, মেডিক্যাল স্টোরে পৌঁছত।

সেভাবে বলতে গেলে করোনার বিরুদ্ধে অস্ত্রভাণ্ডারের দায়িত্বে ছিলেন তিনি। আচমকাই তিনি জ্বরে আক্রান্ত হলে প্রথমে কিছুদিন অফিসে আসা বন্ধ করে দেন। স্থানীয় এক চিকিৎসক তাকে দেখছিলেন। তারপর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে ওই চিকিৎসকের পরামর্শেই তাকে বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে তাঁকে প্রথমে ভর্তি করা হয়। তারপর সেখান থেকে গত ১৮ এপ্রিল তাঁকে সল্টলেকের বেসরকারি হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। শুরু থেকেই তাকে ভেন্টিলেশনে রাখা হয়েছিল।

আরও পড়ুনঃ ঘর থেকে বের হতে না দেওয়ায় ক্ষুব্ধ দেবশ্রী, সেবা নিয়ে রাজনীতির অভিযোগ

হাসপাতাল সূত্রে খবর, ভর্তি হওয়ার সপ্তাহখানেক পর শনিবার রাত ১টা ২০ মিনিট নাগাদ মারা যান ওই শীর্ষ স্বাস্থ্যকর্তা। জানা গিয়েছে, ওই শীর্ষ স্বাস্থ্যকর্তা সুগার এবং হাইপারটেনশনের রোগী ছিলেন। কয়েক মাস আগে এসএসকেএম হাসপাতালে তাঁর হৃদযন্ত্রে অস্ত্রোপচারও হয়।

জানা গিয়েছে, ওই স্বাস্থ্যকর্তার স্ত্রীও করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত। তিনিও সল্টলেকের ওই বেসরকারি হাসপাতালেই ভর্তি রয়েছেন। প্রথম যে চিকিৎসক ওই স্বাস্থ্যকর্তাকে দেখেছিলেন, তাকেও কোয়ারেন্টাইনে নেওয়া হতে পারে বলে জানা গিয়েছে। এই স্বাস্থ্য কর্তার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে টুইট করেন মুখ্যমন্ত্রী।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91 94745 60584

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here