অসম-মিজোরাম সীমান্তে অশান্ত পরিস্থিতি, কেন্দ্রীয় হস্তক্ষেপ দাবি করে চিঠি স্বরাষ্ট্রসচিবের

0
34

নিজস্ব প্রতিবেদন, নিউজ ফ্রন্টঃ

গত সোমবার আসাম-মিজোরাম সীমান্তে সংঘর্ষের পর কেটে গিয়েছে ৪৮ ঘন্টা কিন্তু উত্তর-পূর্ব ভারতের দুই প্রতিবেশী রাজ্যের মধ্যে শান্তির পরিস্থিতি তৈরি হলো না এখনো। মিজোরামের প্রতি অর্থনৈতিক অবরোধ পরিস্থিতি তৈরি করে রেখেছে অসম সরকার, এই অভিযোগ জানিয়ে বুধবার জোরামথাঙ্গা সরকার কেন্দ্রের হস্তক্ষেপ দাবি করে চিঠি পাঠালো কেন্দ্রকে। মিজোরাম রাজ্য সরকারের তরফে কেন্দ্রকে লেখা চিঠিতে বলা হয়েছে জাতীয় সড়ক ও রেলওয়ে যোগাযোগ ব্যবস্থা যা সম্পূর্ণ কেন্দ্রের অধীন তা অবরোধ মুক্ত করতে হস্তক্ষেপ করুক কেন্দ্রীয় সরকার।

Assam Mizoram border
সৌজন্যেঃ পিটিআই

কেন্দ্রকে পাঠানো চিঠিতে মিজোরামের স্বরাষ্ট্র সচিব পিআই লালবিয়াকসঙ্গি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র সচিব অজয় কুমার ভাল্লাকে লিখেছেন, “কোন রাজ্য প্রশাসন বা সাধারণ মানুষ কারুরই অধিকার নেই দিনের পর দিন জাতীয় সড়ক এবং রেলওয়ে যোগাযোগ ব্যবস্থাকে অবরুদ্ধ করার। এই অবরোধের ফলে সাধারণ মানুষের গতিবিধি থেকে জিনিসপত্র যাতায়াত কোনকিছুই সম্ভব হচ্ছে না।”

আরও পড়ুনঃ বাম-কংগ্রেস আগে স্থির করুক বাংলায় তাদের প্রধান বিরোধী কারা, বললেন মুখ্যমন্ত্রী

মিজোরামের স্বরাষ্ট্র সচিব বলেন, ৩০৬ নম্বর জাতীয় সড়কের শিলচর-আইজল অংশ পুরোপুরি অবরুদ্ধ করে রাখা হয়েছে বরাক উপত্যকার কাবুগানির অসমের দিক থেকে। যেখানে মিজোরামের সঙ্গে অন্যত্র সংযোগের একমাত্র সূত্র ৩০৬ নম্বর জাতীয় সড়ক ও রেল।

আরও পড়ুনঃ ‘সর্বভারতীয় স্তরে তৃণমূলের সঙ্গে জোট বাঁধতে আপত্তি নেই’, একথা প্রকাশ্যে আনল সিপিআই

ইতিমধ্যে অসম-মিজোরাম সীমান্ত সংঘর্ষে দুই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীই উত্তপ্ত টুইট যুদ্ধে জড়িয়েছেন একে অপরকে দোষারোপ করে। মিজোরামের মুখ্যমন্ত্রী লিখেছেন উত্তর-পূর্ব ভারতের সবথেকে ছোট রাজ্য মিজোরাম, সীমান্ত সংঘর্ষের ফলস্বরূপ এই অর্থনৈতিক অবরোধে সে রাজ্যে ইতিমধ্যেই নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের সংকট দেখা দিয়েছে, যেমন চাল, ভোজ্য তেল ইত্যাদি। এই পরিস্থিতিতে কেন্দ্রীয় হস্তক্ষেপ জরুরী হয়ে পড়েছে তাদের জন্য।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91 94745 60584

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here