প্রায় নির্বিঘ্নেই শেষ হলো টেট পরীক্ষা, বিভিন্ন জেলায় বন্ধ থাকলো নেট পরিষেবা

0
21

নিজস্ব সংবাদদাতা, মেদিনীপুর:

বজ্র আঁটুনির মধ্য দিয়েই গোটা রাজ্যের মতো অবিভক্ত মেদিনীপুরের তিন জেলাতেও প্রায় নির্বিঘ্নেই শেষ হলো টেট পরীক্ষা।
যতটা সম্ভব নিরাপত্তা ও স্বচ্ছতা বজায় রাখতে তৎপর ছিল পুলিশ প্রশাশন।প্রশ্ন ফাঁস রুখতে রবিবার বেশ কিছু জেলায় তিন ঘণ্টা বন্ধ ছিল ইন্টারনেট পরিষেবা। জানা অন্যান্য কিছু জেলার সাথে দুই মেদিনীপুরেও বন্ধ ছিল ইন্টারনেট পরিসেবা।কড়াকড়ি নিয়ে কিছুটা বিরক্ত হলেও পরীক্ষা শেষে বেশিরভাগই পরীক্ষার প্রশ্নপত্র নিয়ে মোটের উপর খুশি।অভিজ্ঞ মহলের মতে,যাঁরা ঠিকঠাক ভাবে প্রিপারেশন নিয়েছেন বা মন দিয়ে শিক্ষকতার প্রশিক্ষণ সম্পন্ন করেছেন, তাঁদের ক্ষেত্রে এই প্রশ্নপত্রে অসুবিধা হওয়ার কথা নয়।রবিবার সারা রাজ্যের ১ হাজার ৪৬০টি পরীক্ষাকেন্দ্রে হল এই টেট পরীক্ষা। পরীক্ষার্থী সংখ্যা ছিল ৬ লক্ষ ৯০ হাজার ৯৩২ জন। যদিও, অনুপস্থিত ছিলেন কয়েক হাজার। সকাল সাড়ে ৯টা থেকে ১১টার মধ্যেই পরীক্ষাকেন্দ্রে ঢুকতে হয়েছে পরীক্ষার্থীদের। ১১ টা ৫’ এর পর আসা বসু প্রার্থীকেই বহু কেন্দ্র থেকে ফেরত যেতে হয়েছে। আবার কোথাও কোথাও আরও কিছুটা সময় পর্যন্ত এলাউ করা হয়েছে। যাঁদের ফেরানো হয়েছে তাদের অভিযোগ, ১১ টার পরে আর ঢুকতে দেওয়া হবেনা এটা ডাউনলোড হওয়া এডমিট কার্ডে স্পষ্ট ভাবে উল্লেখ থাকা প্রয়োজন ছিল।

একই রকমভাবে কিছু কিছু পরীক্ষাকেন্দ্রে মহিলা চাকরিপ্রার্থীদের শরীরে কোনোরকম গহনা বা অলংকার জাতীয় ধাতব বস্তু রাখতে দেওয়া হয়নি । মহিলাদের চেকিং এর নামে বাড়াবাড়ির অভিযোগ রয়েছে।”নোয়া” খুলতে বেশিরভাগই মহিলাই আপত্তি জানিয়েছেন।আবার, অনেক পরীক্ষাকেন্দ্রেই এ নিয়ে কড়াকড়ি ছিলোনা।পর্ষদের ঘন ঘন নির্দেশিকার কারণে কোথাও কোথাও নানা বিষয়ে বিভ্রান্তি রয়েছে।কোথাও ছবি ব্যবহার হয়েছে, কোথাও ছবি ব্যবহার হয়নি। অন্যদিকে অভিযোগ, পরীক্ষার সঙ্গে যুক্ত নিরীক্ষকদের যে সাম্মানিক পর্ষদ ঘোষণা করেছে,সেই হারে সবকেন্দ্রে অর্থ বরাদ্দ হয়নি।তাই বিভিন্ন পরীক্ষা কেন্দ্রে ভেদে সাম্মানিকের ক্ষেত্রেও তারতম্য হবে। তবে, দু’একটি ছোটখাটো সমস্যা ছাড়া মোটের উপর নির্বিঘ্নেই সম্পন্ন হল পরীক্ষা। ‘প্রশ্ন’ নিয়েও সে রকম কোনো ‘প্রশ্ন’ ওঠেনি। তবে রাজ্যে। শিক্ষাক্ষেত্রে নিয়োগ দুর্নীতি অভিযোগ সহ সহ নানা ডামাডোলের মাঝে অনেকের ‘প্রশ্ন’ শুধু নিয়োগটা ঠিকঠাক হবে তো। আর সমস্ত শূন্যপদ পূরণ নিয়েও পর্ষদের সদিচ্ছা নিয়েও ইতিমধ্যেই অনেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় সরব হয়েছেন।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91 94745 60584

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here