‘সিএএ প্রতিবাদী’দের নামের হোর্ডিং সরাতে নারাজ যোগী, যাচ্ছেন সুপ্রিম কোর্টে

0
199

ওয়েবডেস্ক,নিউজফ্রন্ট:

‘সিএএ প্রতিবাদী’দের নামের হোর্ডিং সরাতে নারাজ উত্তরপ্রদেশের যোগী সরকার। তাই এলাহাবাদ হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে ইউপি সরকার দ্বারস্থ হচ্ছে ভারতের সর্বোচ্চ আদালতের।

ছবি সৌজন্যে: টুইটার

রবিবারের জরুরী ভিত্তিক শুনানিতে এলাহাবাদ হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি জাস্টিস গোবিন্দ মাথুর ও জাস্টিস রমেশ সিনহা উত্তরপ্রদেশের সিএএ বিরোধি আন্দোলনকারীদের নামের ব্যানার টাঙানোর ঘটনাকে ‘অত্যন্ত অন্যায়’ ও ‘সীমালংঘন’ বলে মন্তব্য করেন। একই সঙ্গে তাঁরা লক্ষ্ণৌ প্রশাসনকে সেই ব্যানার ঐদিন বেলা ৩টের মধ্যে সরিয়ে দেওয়ার মৌখিক নির্দেশ দেন।

সোমবার লিখিতভাবে সেই নামের হোডিং গুলো সরানোর নির্দেশ দিয়ে এলাহাবাদ হাইকোর্ট ঘটনাকে ‘আগে থেকে না জানিয়ে মানুষের গোপনীয়তায় নাক গলানো’ বলে উল্লেখ করে। সঙ্গে আদাল এও জানায় যে এই ঘটনা সংবিধানের ২১ ধারাকে লঙ্ঘন করছে।

সংবাদসংস্থা লাইভ ল্য সূত্রে জানা গেছে যোগীর উত্তরপ্রদেশ প্রশাসন এলাহাবাদ হাইকোর্টের এই রায়ে মোটেও খুশি নয়। তাই তারা সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হতে চলেছে।

নতুন নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন বিরোধী আন্দোলনে সারাদেশের সঙ্গে উত্তর প্রদেশও উত্তাল হয়। বলা যেতে পারে অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে উত্তরপ্রদেশ।ঘটে গুলি চালানোর ঘটনা। বহু মানুষের মৃত্যু হয়। ক্ষয়ক্ষতিও হয় বহু।

উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ ঘোষণা করেন, যারা জনগণের সম্পত্তি নষ্ট করছে তাদের ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। তিনি জানান, “যে সমস্ত লোক সহিংস বিক্ষোভের পথ বেছে নিয়ে জনগণের সম্পত্তি নষ্ট করেছে এখন তাঁদের সেই সব লোকসানের জন্য ক্ষতিপূরণ দিতে হবে”।

 

আন্দোলনে গন্ডগোল পাকানো ও সম্পত্তি নষ্টের অভিযোগ আনা হয় অনেকের বিরুদ্ধে। লক্ষ্ণৌ প্রশাসন নাম, ছবি ও ঠিকানাসহ প্রায় ৬০ জনের পুরো ডিটেলস দিয়ে হোর্ডিং  টাঙিয়ে দেয় শহরের গুরুত্বপূর্ণ জায়গাগুলোতে।

উত্তরপ্রদেশ সরকারের এ হেন কান্ডের বিরোধিতা করে এলাহাবাদ হাইকোর্টের আবেদন করেন বিভিন্ন সমাজকর্মী ও মানবাধিকার সংগঠনগুলো। মানুষের ‘গোপনীয়তার অধিকার’ বিঘ্নিত হচ্ছে বলেও অভিযোগ ওঠে।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91 94745 60584

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here