উত্তরাখণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী পদে কেন সংঘের ঘরের লোক ধামি! বুঝতে হলে জানতে হবে পরিচয়

0
45

নিজস্ব প্রতিবেদন, নিউজ ফ্রন্টঃ

ছবি সৌজন্যে:IANS

শনিবার উত্তরাখণ্ড পেলো চারমাসে তৃতীয় মুখ্যমন্ত্রী। শুক্রবার পদত্যাগ করেন তিরথ সিং রাওয়াত, ২৪ ঘন্টা অতিক্রান্ত হওয়ার আগেই ঘোষিত হলো নতুন মুখ্যমন্ত্রীর নাম- পুষ্কর সিং ধামি। হ্যাঁ এটা ঠিক যে, তিরথ ছিলেন না নির্বাচিত বিধায়ক। ওদিকে জেতার মতো নিশ্চিত কোন বিধানসভা কেন্দ্র ফাঁকা নেই, নৈতিকতার চাপে ফেলতে হবে মমতাকে, সর্বোপরি তিরথ সিং রাওয়াতের ক্ষণে ক্ষণে বেফাঁস মন্তব্য- সব মিলিয়ে নতুন কাউকে দরকার ছিলোই বিজেপির। এবার প্রশ্ন কেন পুষ্কর সিং ধামি! কি তাঁর পরিচয়!

পুষ্কর সিং ধামি উধম সিং নগর জেলার খাতিমা থেকে দুবারের বিধায়ক। প্রথমবার ২০১২ সালে নির্বাচিত হন তিনি। এরপর ২০১৭ সালে। অর্থাৎ ধরে নেওয়া যেতে পারে মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্যতার পরীক্ষায় পাশ করেছেন তিনি। এছাড়া, বর্তমানে রাজ্য বিজেপির সহ-সভাপতি তিনি। ১৯৭৫ সালে পিথোরাগড় জেলায় জন্ম তাঁর। রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের বিভিন্ন পদে কাজ করেছেন ধামি। দীর্ঘ ৩৩ বছর সংঘের সদস্য ছিলেন তিনি। একইসঙ্গে সংঘের ছাত্র সংগঠন এবিভিপির সদস্য ছিলেন ১০ বছর। এমনকি, উত্তরপ্রদেশের অযোধ্যা প্রান্তেও কাজ করেছেন তিনি। অতএব সংঘ এবং বিজেপি দুপক্ষের ধাঁচ ধরণ সম্পর্কে সম্যক ধারণা রয়েছে ধামির।

এই পুষ্কর সিং ধামি ২০০২ সাল থেকে ২০০৮ পর্যন্ত উত্তরাখণ্ডের যুব মোর্চার সভাপতি ছিলেন। ভগৎ সিং কোশিয়ারি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালীন তাঁর ব্যক্তিগত সচিব হিসাবে কাজ করেছেন ২০০১-২০০২ সাল পর্যন্ত। রাজ্যের নগরোন্নয়ন কমিটির ভাইস-চেয়ারম্যানও থেকেছেন তিনি। আইন নিয়ে স্নাতক স্তরের পড়াশোনা করেছেন তিনি।

এবার আসা যাক আসল কথায়, এক সময় দেবভূমির পার্বত্য অঞ্চলের ঠাকুর সম্প্রদায় এবং ব্রাহ্মণ সম্প্রদায় এই দুই ভোটব্যাংককে কাজে লাগিয়েছিল কংগ্রেস। এখন বিজেপির বাড়বাড়ন্ত, কাজেই একই ভোটব্যাঙ্ককে এখন ব্যবহার করছে তারা। ধামিকে মুখ্যমন্ত্রী পদে বেছে নিয়ে আসন্ন নির্বাচনের আগে এই ভোটব্যাঙ্ককে প্রভাবিত করতে চেয়েছে বিজেপি। উত্তরাখণ্ডের রাজনীতি মূলত তিনটি ফ্যাক্টরে বিভক্ত। কুমায়ুন বনাম গারোয়াল অঞ্চল, ঠাকুর বনাম ব্রাহ্মণ সম্প্রদায় এবং পার্বত্য বনাম সমতল অঞ্চল। এরকম বেশ কিছু সমীকরণকে মাথায় রেখেই পুষ্কর সিং ধামিকে বেছে নিয়েছে বিজেপি। রাজ্য বিজেপির সভাপতি মদন কৌশিক হরিদ্বারের ব্রাহ্মণ সম্প্রদায়ের। সেটাও বিজেপির একটি কৌশলী চাল।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91 94745 60584

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here