বিজেপি’ই নম্বর ওয়ান

0
107

জনগনই গণতান্ত্রিক শাসনের মূল চালিকা শক্তি।তাই ভোটের বাদ্যি বাজলেই নিরাপত্তার বেষ্টনী ছেড়ে শীততাপ নিয়ন্ত্রিত কক্ষ ছেড়ে নেতা যখন জনসাধারণের দুয়ারে এসে হাজির হয় তখন ভোটদাতা হিসাবে শ্লাঘা জন্মে।সত্যিই তো গর্বিত ভোটদাতা,আমাদের ভোটেই সরকার গড়ে সরকার ভাঙে কিন্তু ভোটে সত্যিই কি জনমতের প্রতিফলন প্রস্ফুটিত হয়?

সাম্প্রতিক একটি তথ্য প্রকাশিত হয়েছে।তথ্যটি বার্ক(ব্রডকাস্ট অডিয়েন্স রিসার্চ কাউন্সিল)এর একটি সমীক্ষা রিপোর্টের ফলাফল।চলতি মাসের ১০ থেকে ১৬ নভেম্বরের এই সমীক্ষায় প্রকাশিত হয়েছে যে,সমস্ত বহুজাতিক ই-কর্মাস পণ্য উৎপাদককে পিছনে ফেলে বিজ্ঞাপন দাতা হিসাবে এক নম্বর স্থানটি দখল করেছে বিজেপি।মধ্যপ্রদেশ রাজস্থান তেলঙ্গানা ছত্তিসগড় এবং মিজোরাম এই পাঁচরাজ্যের বিধানসভা ভোটকে সামনে রেখে এই বিজ্ঞাপনী প্রতিযোগিতায় জয়লাভ বিজেপির।

রাজনীতিতে প্রচার একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।প্রতিটি রাজনৈতিক দল তার কর্মকান্ড উদ্যোগ জনগনকে জানাতে চায় এটি স্বাভাবিক,কিন্তু সেই প্রচার পণ্যের বিজ্ঞাপনী প্রচার নয়।রাজনীতিতে নীতি আদর্শ এবং মানুষের কল্যান সুশাসনের পরিকল্পনা প্রচারিত হয়।সে প্রচার ব্যবসায়িক বিজ্ঞাপনের চেয়ে ভিন্ন।আর গণতন্ত্রে রাজনৈতিক দলের একটি গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব হল নাগরিককে রাজনীতি সচেতন করা।সচেতন করার অর্থ শিক্ষিত করে তোলা।আর শিক্ষিত করতে জনসাধারণের কাছে যেতে হয়।তাদের আপনার মানুষ হয়ে ব্যাথা বেদনার সঙ্গী হতে হয়।সেই অর্থে পণ্যের বিজ্ঞাপনী প্রচার আর রাজনৈতিক প্রচারের মধ্যে একটি চরিত্রগত পার্থক্য আছে।

বর্তমান ভারতবর্ষের রাজনীতিতে নীতির খোঁজ করতে ঐতিহাসিকের প্রয়োজন।ঔদ্ধত্য কটূ বাক্য আর ব্যক্তিগত কাদা ছোঁড়াছুঁড়িই এখন রাজনীতি,আর তাই হয়ে ওঠে মিডিয়ার ব্রেকিং নিউজ।মানুষের দিনযাপনের গ্লানি বেকারত্বের হাহাকার নিরসনের দিশা কোথায়?বার্ক ইন্ডিয়া সূত্রে জানা গেছে গত এক সপ্তাহে সবক’টি টিভি চ্যানেলে বিজেপি’র বিজ্ঞাপন দেখানো হয়েছে মোট বাইশ হাজার নিরানব্বই বার।অর্থাৎ সাবান শ্যাম্পু কন্ডম পানমশলার মতো আমাদের ভালো থাকা শিক্ষা চিকিৎসার ভালো পরিচালককে বিজ্ঞাপন দেখে বুঝে নিতে হবে।গত লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি শুধু বিজ্ঞাপনেই খরচ করেছিল প্রায় পাঁচ হাজার কোটি টাকা।এই বিপুল অর্থের সংস্থান কি?ফলে জনগনের উন্নয়নের কথায় আমরা যতই পুলকিত হই আসলে যাদের টাকায় আমাদের মগজে কার্ফু জারি করে ভোটের ব্যালট বাক্স পূর্ণ হচ্ছে।সরকার তাদেরই,উন্নয়নও তাদেরই।ঠিক যেমন করে আমরা এই সাবানটা ভালো না বলে অন্য সাবানের খোঁজে দৌড়ায় ঠিক তেমনই শাসক নির্বাচনে,’হেথা না অন্য কোথা,অন্য কোনখানে’ বলে সুশাসন খুঁজে ফিরি।

©Newsfront

আরও পড়ুনঃ আপনি আচরি ধর্ম…

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91-9593666485