পড়ুয়াদের স্কুল ফেরাতে,”বন্ধু স্কুল চলো” কর্মসূচি উদয়চাঁদ হাইস্কুলের

0
215

জৈদুল সেখ, মুর্শিদাবাদঃ

করোনা সংক্রমণের জেরে প্রায় দু-বছর বন্ধ থাকার পর চারটি শ্রেণির জন্য স্কুল খুলেছে। কিন্ত শুরু থেকেই জেলার বেশ কিছু স্কুলে উপস্থিতির হার খুব কম। স্কুল খোলার মাস খানেকের পরও পড়ুয়াদের গরহাজিরা নিয়ে চিন্তা কাটেনি শিক্ষকদেরও। সেই তালিকায় রয়েছে মুর্শিদাবাদের জীবন্তি উদয়চাঁদ হাইস্কুল সহ একাধিক স্কুল।

teachers to return students in school
বাড়িতে বাড়িতে স্কুল কর্তৃপক্ষ। নিজস্ব চিত্র

স্কুলে পড়ুয়াদের হাজিরা বাড়াতে বৃহস্পতিবার উদয়চাঁদপুর হাইস্কুলের দশজন শিক্ষক-শিক্ষিকা ট্যাবলোয় মাইকিং করে গ্রামের উদ্দেশ্যে পড়ুয়াদের দুয়ারে পৌঁছালেন শিক্ষকেরা। গ্রামে ঘুরতে ও ছাত্র ছাত্রীদের বাড়ি চিনিয়ে দিতে সাহায্য করলো কিছু বর্তমান ও কিছু প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রী। শিক্ষকদের আগ্রহ দেখে অভিভাবক গণ খুব আপ্লুত। শিক্ষকরাও তাদের ব্যবহার ও আপ্যায়নে খুব খুশি হয়েছে বলে জানিয়েছেন। এই প্রচারের পর আগামীদিন থেকে স্কুলে শিক্ষার্থীদের সংখ্যা বাড়বে বলেই মনে করা হচ্ছে।

Udaychandpur high school
বন্ধু স্কুল চলো কর্মসূচি। নিজস্ব চিত্র

উল্লেখ্য, ১৬ তারিখে স্কুল খোলার পর গত সপ্তাহ থেকে ছাত্র-ছাত্রীদের দু’ভাগে ভাগ করে দেওয়া হয়। সোম বুধ ও শুক্রবার আসবে দশম ও দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র ছাত্রীরা এবং মঙ্গলবার ও বৃহস্পতিবার আসবে নবম ও একাদশ শ্রেণীর ছাত্র ছাত্রীরা। ফলস্বরূপ, হাজিরা আরো অর্ধেক হয়ে গেল। তাই স্কুলছুটদের ফেরাতে শিক্ষকেরা হাজির হলেন শিক্ষার্থীদের দুয়ারে দুয়ারে। যদিও উদয়চাঁদ স্কুল প্রশাসনের পক্ষ থেকে নবম থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত সপ্তাহে পাঁচদিন স্কুলে পঠন পাঠনপাঠনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছেন।

School teachers
নিজস্ব চিত্র

আরও পড়ুনঃ টানা ১৫ মাস পর আন্দোলন থেকে ফিরে যাওয়ার ঘোষণা দিল কিষান মোর্চার নেতারা

এ বিষয়ে উদয়চাঁদপুর হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক সামসুজ্জোহা বিশ্বাস বলেন, “অন্যান্য স্কুলের তুলনায় আমাদের স্কুলে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি সংখ্যা ভালো, বিশেষ করে ছাত্রীদের বেশি আগ্রহ। তবে আমাদের একটাই দাবী নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেনির সপ্তাহে ছয়দিন ক্লাস হোক। না হলে সিলেবাস শেষ করা যাবে না এবং শিক্ষার্থীদের আগ্রহ বাড়বে না। তাছাড়া মাধ্যমিক এবং উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষার্থীদের সিলেবাস শেষ করার ব্যাপার রয়েছে।”

আরও পড়ুনঃ নিমতিতা বিএসএফ ক্যাম্পে পালিত হল স্বর্ণজয়ন্তী শৌর্য প্রদর্শনী

যদিও স্কুল কর্তৃপক্ষ এলাকার শিক্ষার্থীদের কথা মাথায় রেখে নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির পর্যন্ত সপ্তাহে পাঁচদিন ক্লাসের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। তার ফলস্বরূপ উপস্থিতি সংখ্যা ৫৬ শতাংশের বেশি। “বন্ধু স্কুল চলো” প্রগ্রামের পর পড়ুয়াদের হাজিরা সংখ্যা আরও বাড়বে বলে আশা করা যাচ্ছে।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91 94745 60584

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here