কয়লা বাবদ অর্থ মেটাতে রাজ্যকে চিঠি কেন্দ্রের, কয়লা সংকট মানতে নারাজ কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী

0
39

শুভশ্রী মৈত্র, ওয়েব ডেস্কঃ

কয়লা বাবদ বকেয়া দুহাজার কোটি টাকা মেটাতে বলে মুখ্য সচিব হরেকৃষ্ণ দ্বিবেদীকে চিঠি লিখেছেন কেন্দ্রীয় বিদ্যুৎ সচিব অলোক কুমার। রাজ্যের দাবি, দেশজোড়া কয়লা সংকট থেকে দৃষ্টি সরাতেই কেন্দ্রের এই পদক্ষেপ। মুখ্যসচিবকে চিঠি দিয়ে কেন্দ্রীয় বিদ্যুৎসচিব জানিয়েছেন, রাজ্য বিদ্যুৎ উন্নয়ন নিগমের কাছে ৩১ জুলাই পর্যন্ত ২১৮২ কোটি টাকা বকেয়া রয়েছে। সেই অর্থ সময়মতো না-মেটালে কয়লার জোগানে সমস্যা হতে পারে। তাই যত দ্রুত সম্ভব রাজ্যকে বকেয়া মেটানোর আর্জি জানিয়েছেন তিনি।

Power crisis
প্রতীকী ছবি

রাজ্য সরকারের সূত্রে বলা হয়েছে , সাম্প্রতিক কয়লা কেনার পরে সময় ও নিয়ম মেনে মাসিক কিস্তির টাকা পুরোটাই মিটিয়ে দেওয়া হচ্ছে। আগের বকেয়া টাকাও অন্যান্য রাজ্যের মতো প্রচলিত নিয়ম মেনেই মেটানো হচ্ছে। আগের বকেয়ার বেশ কিছু টাকা মিটিয়েও দেওয়া হয়েছে ইতিমধ্যেই।

রাজ্য প্রশাসনিক সূত্রের খবর, নিগম তাদের নিজস্ব পাঁচটি খনি থেকেই এখন প্রায় ৭০% কয়লার চাহিদা মেটায়। বাকিটা নেয় কোল ইন্ডিয়া থেকে। এতে মাসে নিগমের খরচ হয় ২০০ কোটি টাকার কিছু বেশি। সেই টাকা ৬০ দিন পরে মেটাতে হয় নিগমকে। কয়েক বছর ধরে সেই টাকার কিছুই বকেয়া রাখা হয়নি বলে ওই সূত্রের দাবি। ঠিক সময়েই মাসিক কিস্তিতে সেই টাকার পুরোটাই মিটিয়ে দেওয়া হচ্ছে। নিগম আগে যখন কোল ইন্ডিয়ার কাছ থেকে প্রায় ৮০% কয়লা নিত, তখনকার বকেয়াও কিস্তিতে মেটানো হচ্ছে প্রচলিত প্রথা মেনেই। বিদ্যুৎ ক্ষেত্রে অন্যান্য রাজ্যেও একই নিয়ম চালু আছে।

আরও পড়ুনঃ বিয়ের মত ‘ক্ষুদ্র স্বার্থে’ হিন্দু যুবক-যুবতীদের ধর্মান্তর রোধে এগিয়ে আসার আহ্বান মোহন ভাগবতের

উল্লেখ্য, দিল্লি-সহ বেশ কয়েকটি রাজ্যে কয়লা সংকটের জেরে তীব্র বিদ্যুৎ সঙ্কট তৈরি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এনিয়ে রাজ্যগুলির ঘাড়েই দোষ চাপাচ্ছে কেন্দ্র। কেন্দ্রের বক্তব্য, কোল ইন্ডিয়া লিমিটেডের কাছে রাজ্যগুলি তাদের বকেয়া অর্থ মেটায়নি।

আরও পড়ুনঃ বাংলা সহ তিন রাজ্যে কাজের ব্যাপ্তি বাড়ল বিএসএফের, নয়া ফরমান জারি অমিত শাহের দপ্তরের

কেন্দ্রীয় কয়লামন্ত্রী প্রহ্লাদ জোশী বলেছেন, এই সঙ্কট তৈরির জন্য আন্তর্জাতিক বাজারে মূল্যবৃদ্ধির পাশাপাশি চলতি বছরে অধিক পরিমাণে বৃষ্টিও দায়ী। কয়লাখনিগুলিতে জল ঢুকে পরিস্থিতি খারাপ করেছে। তবে তিন-চার দিনের মধ্যে পরিস্থিতি ঠিক হয়ে যাবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন মন্ত্রী। যদিও সংকটের বিষয়টি মানতে নারাজ কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91 94745 60584

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here