জলসংকটে আর্সেনিকযুক্ত জল পান কালিয়াগঞ্জের নাটমন্দির চত্বরে

0
42

পিয়া গুপ্তা ,কালিয়াগঞ্জঃ

দুটো জলের ট্যাঙ্ক তাও আবার দীর্ঘ দিন ধরে অকেজো।তাই আর্সেনিক যুক্ত কলের জলই এখন ভরসা কালিয়াগঞ্জ চত্বরে আসা ভক্তবৃন্দদের।
একে তো প্রবল দাবদাহ, তার উপরে পানীয় জলের দুটো ট্যাঙ্কই অকেজো ফলে, কয়েক মাস ধরে কালিয়াগঞ্জ নাটমন্দিরে ঢুকলে প্রাণ ওষ্ঠাগত ভক্তবৃন্দ থেকে সাধারণ মানুষের।জলের অভাবে শেষ পর্যন্ত বাথরুমের পাশে অবস্থিত আর্সেনিক যুক্ত জলের শরণাপন্ন হচ্ছেন নাটমন্দিরে আসা ভক্তবৃন্দ থেকে ছাত্র ছাত্রীরা । সৌন্দর্যের আবরণে মোড়া কালিয়াগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী নাটমন্দির দীর্ঘদিন ধরে জলের সমস্যায় ক্ষুব্ধ সাধারণ মানুষ।

জলহীন কল।নিজস্ব চিত্র

উল্লেখ্য
উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জের ঐতিহ্যবাহি নাটমন্দির যেখানে সকাল সন্ধ্যা মানুষের ভিড়ে জমজমাট হয়ে থাকে নাটমন্দির প্রাঙ্গণ ।যেখান সকাল সন্ধ্যে বহু দুস্থ ছেলেমেয়েরা দূরদূরান্ত থেকে পড়তে আসে।যেখানে সন্ধ্যা হতেই বহু ভক্তের সমাগম হয ।পৌর এলাকায় অবস্থিত শত শত মানুষের আগমণ এই নাটমন্দিরে ।তা সত্বেও কালিয়াগঞ্জের এই ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে আজ মাসখানেক ধরে তীব্র পানীয় জলের সমস্যা ।

কয়েক বছর আগে যদিও বা নাটমন্দির কমিটির উদ্যোগে একটি পানীয় জলের ট্যাঙ্ক ও দানে উদ্দেশ্যে একটি ঠাণ্ডা পানীয় জলের ট্যাঙ্কের ব্যবস্থা করা হয়েছিল নাটমন্দির কমেটির উদ্যেগে ।তবে আজ ছয মাস ধরে সেই পানীয় জলের দুটো ট্যাঙ্ক অকেজো হয়ে পড়ে থাকলেও নাটমন্দির কর্তৃপক্ষ কিংবা পৌরপ্রশাসন কারোই কোন হেলদোল নেই।ফলে নাটমন্দির প্রাঙ্গণে সকাল সন্ধ্যা আসা বহু মানুষ ক্ষুব্ধ ।

জলহীন কল।নিজস্ব চিত্র

তাদের বক্তব্য গ্রীষ্মের দাবদাহ গরমে এই এত বড় ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে পানীয় জলের অভাব।তাই নাটমন্দির কমিটি কিংবা পৌর কর্তৃপক্ষের উচিত জলদি এই নাটমন্দির প্রাঙ্গণের জলের ট্যাঙ্ক গুলো মেরামত করে পানীয় জলের ব্যাবস্থা করা।দূরদূরান্ত থেকে নাটমন্দিরে পড়তে আসা ছেলেমেয়েরা জানান সকাল হতেই জলের তৃষ্ণা নিবারণে তাদের আর্সেনিক যুক্ত কলের জল খেতে হয় ।
তাই সকলের বক্তব্য নাটমন্দিরে পানীয় জলের ট্যাঙ্ক গুলোর মেরামত করে তোলা।
।নইলে নাটমন্দিরের আর্সেনিক যুক্ত কলের জল খেয়ে শীঘ্রই ছাত্র ছাত্রীরা অসুস্থ হয়ে পড়বে ।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91-9593666485