মাস্ক, স্যানিটাইজারের কালোবাজারি বন্ধে পদক্ষেপ, স্বাস্থ্য দফতরের

0
20

শুভম বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতাঃ

যত দিন যাচ্ছে, করোনা আতঙ্কে ততই বাড়ছে মাস্ক এবং স্যানিটাইজারের চাহিদা। আর এই বিপুল চাহিদা দেখে মাস্ক, স্যানিটাইজারের কালোবাজারির অভিযোগ উঠেছে এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে। সেই কারণেই এবার মাস্ক, স্যানিটাইজার মজুত করার পরিমাণ নিয়ে নতুন বিজ্ঞপ্তি জারি করল রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর৷ মহামারি আইনের অধীনে এই নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে৷

bazer |newsfront.co
ছবিঃ প্রতীকী

আরও পড়ুনঃ রক্তসংকট কাটাতে নেতাজি ইন্ডোরে মাসব্যাপী রক্তদান শিবির কলকাতা পুলিশের

জানা গিয়েছে, এবার খুচরো এবং পাইকারি বিক্রেতাদের জন্য মাস্ক, স্যানিটাইজার মজুত করার সর্বোচ্চ পরিমাণ বেঁধে দেওয়া হয়েছে। পাইকারি বিক্রেতারা একসঙ্গে ১০০০ এন-৯৫ মাস্ক মজুত করতে পারবেন৷ খুচরো বিক্রেতারা ১০০-র বেশি এন-৯৫ মাস্ক মজুত করতে পারবেন না৷ টু প্লাই মাস্কের ক্ষেত্রেও খুচরো বিক্রেতারা সর্বাধিক ২০০ এবং পাইকারি বিক্রেতারা সর্বাধিক ৩ হাজার মাস্ক মজুত করতে পারবেন৷ আবার খুচরো বিক্রেতারা সর্বাধিক ২০০ এবং পাইকারি বিক্রেতারা সর্বাধিক ৩ হাজারের বেশি থ্রি প্লাই মাস্ক মজুত করতে পারবেন না৷

হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ক্ষেত্রেও মজুতদারির সীমা বেঁধে দেওয়া হয়েছে৷ পাইকারি বিক্রেতারা সর্বাধিক ১০০ লিটার স্যানিটাইজার মজুত করতে পারবেন৷ আর খুচরো বিক্রেতারা সর্বাধিক ৫ লিটার স্যানিটাইজার মজুত করতে পারবেন৷আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত এই নির্দেশিকা কার্যকর থাকবে৷ এই নির্দেশিকা অমান্য করলে কড়া শাস্তির হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে৷ এই দুটি সামগ্রীকেই অত্যাবশ্যকীয় পণ্য বলে বিবেচনা করতে বলা হয়েছে।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91-9593666485