সপ্তম শ্রেণীর ছাত্র ফেরিওয়ালার খবর নিউজ ফ্রন্টে প্রকাশ হতেই হালিমের দায়িত্ব নিল স্কুল

0
90

সজিবুল ইসলাম, মুর্শিদাবাদঃ

গত ২১ শে জানুয়ারি নিউজ ফ্রন্টে খবর প্রকাশ হয় জলঙ্গি ব্লকের সাদিখানদেয়ার বিদ্যানিকেতনের সপ্তম শ্রেণীর ছাত্র হালিম আনসারী ফেরিওয়ালার। তারপরেই সাদিখানদেয়ার বিদ্যানিকেতনের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক খন্দকার গোলাম মুর্তজা তাদের শিক্ষকদের গ্রুপে সেই খবর পোস্ট করে এবং সেই ছাত্রের খোঁজ খবর নেওয়ার নির্দেশ দেন। নির্দেশ অনুযায়ী, স্কুলের পার্শ্বশিক্ষক ছুটে যায় হালিম আনসারীর বাড়িতে। বাড়িতে গিয়ে অনেক বোঝানোর পরে স্কুলমুখী করতে পারেন বলেও জানাচ্ছেন, এমনকি স্কুলে নিয়ে এসে ভর্তি করানো হয়।

Halim Ansari
সপ্তম শ্রেণীর ওই ছাত্র

পার্শ্বশিক্ষক মাইনুদ্দিন সেখ জানাচ্ছেন যে,  সত্যি একদম অসহায় নিরীহ পরিবার সেখান থেকে ছেলেদের পড়াশোনা করানো সত্যিই খুবই কষ্টকর। বৃদ্ধ বাবা, ছোট ছোট ভাই-বোন সকলকে নিয়ে ছোট্ট একটা কোনরকমে মাথা গোঁজার মতন ঘর, দিন কাটে নুন আনতে পান্তা ফুরায়। সেই পরিবার থেকে স্কুলে পড়ানো খুব কষ্টকর বলে প্রকাশ করেন ছাত্রের বাবা। এই পরিস্থিতি দেখে হালিম আনসারীর সমস্ত লেখাপড়ার দায়ভার নিলেন স্কুল কর্তৃপক্ষ।

সাদিখানদেয়ার বিদ্যানিকেতনের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক খন্দকার গোলাম মুর্তজা নিউজ ফ্রন্ট সংবাদ মাধ্যমকে ধন্যবাদ জানায় যে, অসহায় ছাত্রদের জীবনযুদ্ধের লড়াই তুলে ধরার জন্য। সংবাদমাধ্যমের জন্য আমাদের সামনে আসতেই স্কুলে হালিম আনসারীকে ভর্তি করা সহ বই পোশাক সহ অন্য সাহায্য করা হবে বলেও জানান।

স্কুলের এই উদ্যোগে হালিম আনসারীর বাবা আমরুল আনসারী জানান যে, ইচ্ছে থাকলেও সম্ভব হচ্ছে না ছেলেকে পড়াশোনা করানো। দোষ আমাদের গরীবের  কপাল। সরকারের দেওয়া একটি ঘর কোনো রকমে পাঁচ মেয়ে ও এক ছেলেকে নিয়ে থাকি, গোটা বাড়ি ফাঁকা। স্কুল থেকে বিনামূল্যে ভর্তি করেছে এবং বই খাতা সহ আরো সাহায্য করতে চেয়েছেন। যদি সাহায্য করেন তাহলে পড়ানো সম্ভব হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

হালিম আনসারী মা সাহানারা খাতুন জানান যে, আমাদের সরকারের যে চাল পায় সেই দিয়ে কোনো রকম চলে। আর স্বামী কয়েক বছর ধরে কোনো কাজ করতে পারে না। সেই জন্য ছোটো ছেলে ব্যবসা করছে যা অর্থ উপার্জন করা হয় সেই দিয়ে হাট বাজার করা কোনো রকম সংসার চলছে।সরকার যদি সাহায্য করে তাহলে ছেলেকে পড়াতে পারবো।

যদিও সাদি খাঁনদেয়ার গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে যোগাযোগ করা যায়নি। স্কুলের এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন এলাকার বিশিষ্ট মহল থেকে সাধারণ মানুষ।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91 94745 60584

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here