নীতিহীন সংবাদের অনন্য নজির দুর্ঘটনায় নিহত পুলিশের বিকৃত বাজারী সংবাদে

0
158

প্রতিটি পেশায় পেশাদারিত্ব  থাকতে হয় নয়ত সেই পেশার প্রতি বিশ্বাসঘাতকতা করা হয়। সংবাদ মাধ্যম এমন একটি পেশা যেখানে পেশার দায়িত্ব থেকে যায় অনেক বেশী । আর সে মাধ্যম যদি আপাত অর্থে নামী সংস্থা হয় তবে তার কাছ থেকে সেই দায়িত্ববোধের পরিচয় অনেক বেশী দাবী করাই যায়। বাংলা সংবাদ মাধ্যম জগতে আনন্দবাজার পত্রিকা দাবী করে যে সেই সেরা। হ্যাঁ সংবাদ বাজারেও তার বিক্রি বাটা বেশ লোভনীয় কিন্তু দায়িত্বশীলতায় বড্ড বেশী কমজোরি হয়ে পড়ছে বর্তমানে। হ্যাঁ পূর্বেও আমাদের এই পোর্টালে এই সংবাদ মাধ্যমের একটি সংবাদকে কেন্দ্র করে লেখা প্রকাশিত হয়েছে আবার  সে ঘটনার পুনরাবৃত্তি।

কর্তব্যরত অবস্থায় নিহত রাকেশ কুন্ডূ । ফাইল চিত্র

 

 

 

 

 

 

দূর্ঘটনায় নিহত রাকেশ কুন্ডু

এবারের সংবাদ শুধু সংবাদের নৈতিকতা নয় মানবিকতার বিচারেও সম্পূর্ণ ভাবে অকৃতকার্য হয়েছে বাংলা সংবাদমাধ্যমের এই স্বঘোষিত অভিভাবক। ঘটনার প্রকাশ এই যে,  কলকাতা পুলিশের সার্জেন্ট রাকেশ কুন্ডু যিনি ওয়ারলেস বিভাগে কর্মরত ছিলেন গতকাল ভোরে কাজে যোগ দিতে নিজ বাসভবন নদীয়া থেকে কলকাতা আসছিলেন। পথে চাকদা-বনগাঁ এক্সপ্রেসওয়েতে দুর্ঘনায় মারা যান। একজন পুলিশ অফিসারের এই মৃত্যু অবশ্যই একটি সংবাদ একটি সংবাদমাধ্যম হিসাবে তা প্রকাশ করার দায়িত্বও বটে।  যেখানে সরকারী সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সমগ্র রাজ্যজুড়ে সেফ ড্রাইভ সেফ লাইফের প্রচার চলছে  সেখানে এই মৃত্যু অবশ্যই একটি সংবাদ বিষয় । কিন্তু সেই সংবাদকে নিজের মন মত করে সাজিয়ে প্রকাশ শুধু অন্যয় নয় দায়িত্ব জ্ঞানহীনতার চরম বহিঃপ্রকাশ । কারন সংবাদের প্রধান চরিত্র যখন মৃত। সেখানে আনন্দ বাজার বাজার গরম করতে ঘটনার ভুল তথ্য পরিবেশন করে দ্রুত গতির বাইক আরোহন এবং রাকেশ হেলমেট বিহীন ছিল বলে প্রকাশ করেছে।প্রথমত দ্রুতগতি কথাটি আপেক্ষিক যতক্ষণ না তার সাপেক্ষে সবল প্রমান পাওয়া যাবে দ্বিতীয়ত রাকেশের বিরুদ্ধে হেলমেটহীনতার প্রসঙ্গ তোলা হয়েছে যাতে তার দায়িত্বহীনতা এবং আইনের রক্ষক হয়ে বেআইনীর তকমা দেওয়া হয়েছে।

আনন্দবাজার প্রকাশিত খবর

কিন্তু কলকাতা পুলিশের ফেসবুক পেজে ছবি সহ দেখানো হয়েছে এ অভিযোগ  সত্য।তাহলে আনন্দ বাজারের উচিত মিথ্যার দায় স্বীকার করে আগামীকাল সংবাদ প্রকাশ করা।যদি তা না করে তবে আনন্দ বাজার তার পেশাগত দায়িত্বহীনতার আর এক অনন্য নজির সৃষ্টি করবে।কারন একজন দায়িত্বশীল পুলিশ  সার্জেন্টের বেদনা দায়ক মৃত্যুকে মিথ্যা প্রচার দিয়ে পারিবারিক ও সামাজিক ভাবে ছোট করা হল।দ্বিতীয়ত সংবাদ মাধ্যমের বিরুদ্ধে বর্তমানে যেসব অভিযোগগুলি উঠছে তার সপক্ষেই এক অনন্য নেতিবাচক দৃষ্টান্ত তৈরী করলো।

ক্ষুদ্র শক্তি কিন্তু সংবাদমাধ্যমের বিস্তৃত দায়িত্ববোধ নিয়েই আমরা নিউজ ফ্রন্টের পক্ষ থেকে আনন্দ বাজারের এই ভুল সংবাদ প্রকাশের বিরোধীতা করছি এবং সংবাদ মাধ্যমের দায়িত্ববোধ নিয়ে রাকেশের পরিবার এবং তাঁর সহকর্মীদের কাছে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি।এই ধরনের ভুল বিকৃত সংবাদের বিপরীতে আছে কিছু দায়িত্বশীল সংবাদ প্রকাশের নীতিবোধ যা আমরা পালন করে চলছি।

 

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91-9593666485