পরিযায়ী শ্রমিকদের কর্মদক্ষতা বুঝতে বিশেষ টিম গঠন জেলা প্রশাসনের

0
109

মনিরুল হক, কোচবিহারঃ

এবারে পরিযায়ী শ্রমিকদের কাজে লাগাতে তৎপর কোচবিহার জেলা প্রশাসন। কোচবিহার জেলা প্রশাসন পরিযায়ী শ্রমিকদের কাজ দিতে একটি বিশেষ পরিকল্পনা করেছে। তাদের কাছ থেকে সব রকম তথ্য সংগ্রহ করতে একটি টিম গঠন করা হয়েছে। জানা গেছে, ওই প্রশাসনিক কর্তারা কোয়ারেন্টাইন সেন্টার এবং প্রয়োজনে হোম কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে গিয়ে পরিযায়ী শ্রমিকরা জিজ্ঞাসা করবেন, কী ধরনের কাজ করেছেন। অন্য কোনও কাজে তাঁদের পারদর্শিতা আছে কি না।

Coochbehar DM office | newsfront.co
নিজস্ব চিত্র

এখানে কী ধরনের কাজ করতে তাঁরা ইচ্ছুক। এই সমস্ত তথ্য বিস্তারিতভাবে নথিভুক্ত করে তালিকা তৈরি করা হবে। জেলা প্রশাসনের তৈরি ওই টিমে থাকছেন বিডিও। পাশাপাশি শ্রম দফতর, শিল্প দফতর সহ বিভিন্ন দফতরের আধিকারিকরা ও গ্রাম পঞ্চায়েত স্তরে যাঁরা একশো দিনের কাজ দেখাশোনা করছেন তাঁরাও থাকবেন।

প্রশাসন সূত্রে খবর, ইতিমধ্যেই ট্রেন ও বাসে করে ৫০ হাজারের বেশি শ্রমিক কোচবিহারে চলে এসেছেন। ফিল্ড সার্ভিলেন্স করোনা ওয়ারিয়র টিম রয়েছে। এরা গ্রামে ফেরা শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলবে। সব স্তর থেকে শ্রমিকদের বিষয়ে তথ্য জোগার করা হবে। কাজ তো সরাসরি দেওয়া যাবে না। কিন্তু সরকারি প্রকল্পের অধীনে কাকে কীভাবে কাজে লাগানো যায়, সেটা দেখা হচ্ছে।

আরও পড়ুনঃ কোচবিহারের করোনা আক্রান্তদের পাঠানো হল শিলিগুড়ির হিমাচল বিহার হাসপাতালে

জেলা শাসক বলেন, ‘ওঁরা যে কাজ করতে পারেন সেই ধরনের প্রোজেক্ট তৈরি করতে প্রশাসন তাঁদের সহযোগিতা করবে। ব্যাঙ্ক থেকে ঋণ পেতে প্রশাসন সাহায্য করবে। এনআরইজিএস-এ স্কিলড লোক লাগে। প্রশিক্ষিত শ্রমিক প্রতিদিন চারশোর বেশি টাকা পাবেন। সেখানে তাঁকে কাজ দেওয়া যাবে। শস্যবিমা যোজনায় গ্রুপ ইনসুরেন্স দেওয়া যাবে। যাঁরা কৃষিকাজ করবেন তাঁদের কিষান ক্রেডিট কার্ড দেওয়া য়াবে। এজন্য প্রয়োজনে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। সরাসরি চাকরি দেওয়া না গেলেও তাঁদের কাজের জন্য উপযুক্ত করা যাবে। সাহায্য করার দায়িত্ব প্রশাসনের। এজন্য তালিকা তৈরি হচ্ছে।’

সম্প্রতি জেলাগুলির সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে মুখ্যমন্ত্রী পরিযায়ী শ্রমিকদের কাজের ব্যাপারে জেলা প্রশাসনগুলিকে উদ্যোগী হতে বলেন। তারপরই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে কোচবিহার জেলা প্রশাসন। প্রসঙ্গত, প্রায় ৩ মাসের ধরে চলছে লকডাউন। আর এই লকডাউনের মাঝে ভিন রাজ্যে থেকে কোচবিহারে ফিরিয়ে আনা হচ্ছে হাজার হাজার পরিযায়ী শ্রমিকদের।

লকডাউনের ফলে যারা কর্মহীন হয়ে পড়েছেন, তাদের কর্মসংস্থানই এখন রাজ্য সরকারের সবচেয়ে বড়ো মাথাব্যথা। এই পরিযায়ীদের একটা বড় অংশকে একশো দিনের কাজ দেওয়ার পরিকল্পনা নিয়েছে সরকার। সেই অনুযায়ী তাঁদের জব কার্ড দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু তাতে সমস্যা পুরোপুরি মিটবে না, এটাও প্রশাসনের কর্তারা বুঝে নিতে চান।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91 94745 60584

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here