দিনহাটায় রেশম শিল্প প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের দৈন্যদশায় আতঙ্কিত চাষীরা প্রশাসনের দ্বারস্থ

0
19

অমৃতা চন্দ,কোচবিহারঃ

দিনহাটা মহকুমার একমাত্র রেশম শিল্প প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের দৈন্যদশা নিয়ে আতঙ্কিত রেশম চাষীরা ব্লক প্রশাসনের দ্বারস্থ হলো। রেশম চাষীদের পক্ষ থেকে ব্লকের বিডিওর কাছে ডেপুটেশন দিয়ে অবিলম্বে তার দৈন্য অবস্থা দূরীকরণের দাবি জানানো হয়। দাবি পত্রের প্রতিলিপি কোচবিহারের জেলাশাসক পবন কার্ডিয়ান এবং দিনহাটা মহকুমা শাসক শেখ আনসার আহমেদের কাছেও পাঠানো হয় বলে তারা জানান। কর্মীর অভাবে অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করা রেশম চাষীরা তাদের কাজ হারানোর আতঙ্কে ভুগছেন।

নিজস্ব চিত্র

শুক্রবার দিনহাটা এক বিডিও কাছে ডেপুটেশন দিয়ে সমস্যা সমাধানে প্রশাসনের সহযোগিতা চান তারা। এদিন ব্লক প্রশাসনের পক্ষ থেকেও বিডিও সৌভিক চন্দ এই শিল্প ও শিল্পের সাথে যুক্ত কৃষকদের বাঁচাতে তার সহযোগিতার কথা তুলে ধরেন। রেশম চাষীদের পক্ষ থেকে এদিন সিরাজুল মিয়া, শরৎ চন্দ্র বর্মন, প্রফুল্ল বর্মন, শ্যামলী বর্মন, সুদর্শন বর্মন, সাবিত্রী বর্মন, মন্টু বর্মন, কৃষ্ণকান্ত রায় প্রমুখদের এক প্রতিনিধিদল বিডিওর সাথে দেখা করে তার হাতে দাবিপত্র তুলে দেন।

নিজস্ব চিত্র

এই রেশম চাষীদের সিরাজুল মিয়া বলেন দিনহাটা মহকুমার বড়নাচিনা এলাকায় যে রেশম শিল্প প্রশিক্ষণ কেন্দ্র রয়েছে সেখানে ইতিপূর্বে প্রায় ২৪ জন কর্মী থাকলেও কমতে কমতে বর্তমানের সংখ্যা এসে দাঁড়িয়েছে একজনে । সেই একজন কর্মী ও আগামী মাস তিনেকের মধ্যে অবসর নেবে। ওই কর্মী চলে গেলে তাদের জীবন-জীবিকা নির্ভরশীল হওয়া এই কেন্দ্রটি বন্ধ হয়ে যাবে। সে ক্ষেত্রে তাদের রুটি-রোজগারের সমস্যায় পড়তে হবে। তারা কেউ ৩০ বছর ,কেউ ৩৫ বছর, কেউ কুড়ি বছর ধরে কাজ করে চলছেন। রেশম চাষের সাথে তারা এমনি ভাবে জড়িয়ে থেকে কোনরকমে দিন গুজরান করে থাকেন। এই চাষাবাদের ফলে তারাও সরকারি নানা ভাবে সুযোগ-সুবিধাও পেয়ে আসছিলেন। প্রজাপতির ডিম থেকে শুরু করে নানারকম সার সহ অন্যান্য জিনিস তারা এখান থেকেই পেতেন। এই কেন্দ্র থেকে রেশম চাষের আত্যাধুনিক প্রশিক্ষণ, সরকারি সহযোগিতার পাশাপাশি তারা এই চাষের উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছেন। বর্তমানে কর্মী সংখ্যা কমতে কমতে দুইজনে এসে দাঁড়িয়েছে। তাদের মধ্যে একজন অবসর নেয়। বাকি একজন দুই এক মাসের মধ্যে অবসর নেবে। দিনহাটার এই কেন্দ্রের সাথে তিন শতাধিক কৃষক যুক্ত রয়েছেন। শিল্প কেন্দ্রটি বন্ধ হওয়ার মুখে এসে দাঁড়ানোয় এমত অবস্থায় তারা সরকারি সহযোগিতা না পেলে ভবিষ্যৎ জীবন-জীবিকার আশঙ্কায় ভুগছেন বলেও জানান।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91 94745 60584

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here