নদীয়ায় তৃণমূলের গোঁঁজ প্রার্থীরাই তৃণমূলের পথের কাঁটা

0
86

শ্যামল রায়, নদীয়াঃ-

জমে উঠেছে ভোট লড়াই।আসন্ন পঞ্চায়েত নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের ভোট প্রচার এর প্রধান হাতিয়ার উন্নয়ন হলেও ত্রিমুখী লড়াইয়ের তৃণমূলের জয় অনেক জায়গায় অনিশ্চয়তার মুখে পড়তে হচ্ছে নেতা-নেত্রীদের। কারণ একটাই তৃণমূলের গোজ প্রার্থীরাই তৃণমূলের প্রার্থীকে হারাতে মরিয়া হয়ে উঠেছে এমনটাই জানা গিয়েছে।
নবদ্বীপ ব্লক জুড়ে এমনটাই রাজনৈতিক চর্চা এখন। মাটি ছাড়তে রাজি নয় কোন রাজনৈতিক দলের নেতারা। বিশেষ করে নদীয়া জেলার নবদ্বীপ ব্লক, কৃষ্ণনগর  ১ও ২ চাপড়া, তেহট্ট, হাসখালি ,চাকদা শান্তিপুর, রানাঘাট প্রভৃতি এলাকা জুড়েই তৃণমূল কংগ্রেসের মাথাব্যথার প্রধান কারণ এখন একটা‌, তৃণমূলের সাথে তৃণমূলে লড়াই।জানা গিয়েছে যে বহু জয়ী প্রার্থী টিকিট না পাওয়ার কারণেই নির্দল প্রার্থী হয়ে লড়াইয়ে নেমেছে। তবে তৃণমূলের জেলা নেতারা ভেতর-ভেতর বিষয়টি নিয়ে ভাবলে ও প্রকাশ্যে বলতে চাইছেন না কারণ এই বার্তাটা নিচুস্তরের কর্মী-সমর্থকদের কাছে পৌঁছালে বিপরীত প্রতিক্রিয়া হতে পারে। এই মুহূর্তে জানা গিয়েছে যে নদীয়া জেলায় তৃণমূলের গোজ বুজ প্রার্থীর সংখ্যা ৩০৫ জন।পাশাপাশি জেলা নেতৃত্ব এই নিয়ে চিন্তার মধ্যে রয়েছেন। গ্রাম পঞ্চায়েতে নির্দল প্রার্থী সংখ্যা সবথেকে বেশি ৬৯৮জন।এদের মধ্যে বেশিরভাগই বিক্ষুব্ধ তৃণমূল গোষ্ঠীই নির্দল প্রার্থী হয়ে লড়াইয়ে নেমেছে।তাই মাথা ব্যথার কারণটা ক্রমশ বাড়ছে তৃণমূল কংগ্রেস নেতা নেত্রীদের‌।মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন চলে গেছে তাই গোজ প্রার্থী ও নির্দল প্রার্থীরাই এখন মাথাব্যথার প্রধান কারণ তৃণমূল কংগ্রেসের কাছে।

গ্রাম পঞ্চায়েতের মোট আসন সংখ্যা৩২০৯টি। কিন্তু তৃণমূলের মনোনয়নপত্র জমা পড়েছিল৩৫৫১টি।ফলে গ্রাম পঞ্চায়েতে এখনো২৮১জন প্রার্থী বেশি রয়ে গেছেন।পঞ্চায়েত সমিতির মোট আসন সংখ্যা৫৪১জন। তৃণমূলের মনোনয়নপত্র জমা পড়েছিল৬৪১জন।১৭০জন প্রার্থী বেশি রয়েছে।জেলা পরিষদের মোট আসন সংখ্যা ৪৭ জন।তৃণমূলের মনোনয়নপত্র জমা পড়েছিল ৫০ জনের।তিনজন প্রার্থী বেশি। এর মধ্যে দুইজন প্রত্যাহার করলেও একজন এখনো প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছে।তাই গ্রাম পঞ্চায়েত, পঞ্চায়েত সমিতি ও জেলা পরিষদে ৩০৫জন প্রার্থী তৃণমূলের বাড়তি প্রার্থী গোজ হিসাবে থেকে গেলেন।

তৃণমূলের জেলা সভাপতি গৌরী শংকর দত্ত জানিয়েছেন যে প্রত্যেক গোজ প্রার্থীদের
নিজ নিজ এলাকায় লিফলেট বিলি করার কথা বলা হয়েছে।এই নির্দেশ যদি তারা অমান্য করেন তাহলে দল থেকে তাদের বহিষ্কার করা হবে‌। এই লিফলেট বিলিকে কেন্দ্র করে ও নানান সমস্যা তৈরি হয়েছে এলাকায়।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91 94745 60584

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here