গুলিবিদ্ধ আলিপুরদুয়ারের তৃণমূল নেতা মনোরঞ্জন দে

0
281

নিজস্ব সংবাদদাতা, আলিপুরদুয়ারঃ

আলিপুরদুয়ারের তৃণমূল নেতা মনোরঞ্জন দে গুলিবিদ্ধ হলেন। বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে শিলিগুড়ি থেকে ফেরার সময় জলপাইগুড়ি জেলার মালবাজারে গুলিবিদ্ধ হন তিনি। মালবাজারে জাতীয় সড়কের ধারে শৌচকর্ম করতে গাড়ি থেকে নামলে দুষ্কৃতীরা তাকে লক্ষ্য করে তিন রাউন্ড গুলি ছোরে বলে অভিযোগ।

monoranjan dey | newsfront.co
ফাইল চিত্র

দুই রাউন্ড গুলি লক্ষ্য ভ্রষ্ট হলেও এক রাউন্ড গুলি মনোরঞ্জন বাবুর বা পায়ে হাটুর কাছে লাগে বলে অভিযোগ। সাথে সাথে তার নিরাপত্তা রক্ষী গাড়ি ঘুরিয়ে তাকে শিলিগুড়িতে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখানেই তার চিকিৎসা চলছে। পায়ে একাধিক অপারেশন হয়েছে।

পা থেকে গুলি বের করেছেন চিকিৎসকরা। শুক্রবার সকালে মনোরঞ্জন বাবুর গুলি বিদ্ধ হওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়তেই রাস্তায় নামে তৃণমূল কংগ্রেস। আলিপুরদুয়ারে বিজেপির বিরুদ্ধে এই গুলি চালানোর অভিযোগ তুলে মিছিল বের করেন ছাত্র ও যুবরা। মিছিলের নেতৃত্বে ছিলেন জেলা যুব, ছাত্র সংগঠনের নেতারা।

আরও পড়ুনঃ করোনা পরিস্থিতিতে ঘরে বসেই সারা যাবে গঙ্গাসাগরের স্নান, প্রসাদ পৌঁছাবে কুরিয়ারে

রাতেই খবর পেয়ে হাসপাতালে ছুটে গেছেন আলিপুরদুয়ার জেলা তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক সঞ্জিত ধর। সকালে শিলিগুড়ি বেসরকারি হাসপাতালে যান পর্যটন মন্ত্রী গৌতম দেব, আলিপুরদুয়ারের বিধায়ক সৌরভ চক্রবর্তী সহ অন্যান্য নেতা কর্মীরা। সকালে মনোরঞ্জন দে’র প্রচুর অনুগামী তাকে দেখতে শিলিগুড়ির বেসরকারি হাসপাতালে যান।

পর্যটন মন্ত্রী গৌতম দেব বলেন, “এই কাজ বিজেপির। সর্বত্র অশান্তির চেষ্টা করছে বিজেপি। গোটা উত্তরবঙ্গে এই হামলার নিন্দা করে আমরা প্রতিবাদ জানাব। তিন রাউন্ড গুলি চালানো হয়েছিল। পায়ে এক রাউন্ড গুলি লেগেছে। তাকে মেরে ফেলার জন্যই গুলি চালিয়েছিল দুষ্কৃতীরা।”

আরও পড়ুনঃ দক্ষিণ ২৪ পরগনায় তক্ষক, হরিণের চামড়া সহ গ্রেফতার ৫

আলিপুরদুয়ার জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি মৃদুল গোস্বামি বলেন, ” বিজেপি চক্রান্ত করে তাকে মেরে ফেলার জন্য এই গুলি চালিয়েছে। আমরা বিজেপিকে ধিক্কার জানাই। সর্বত্র এই ঘটনার প্রতিবাদ হবে।” বিজেপি অবশ্য এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91 94745 60584

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here