বিজেপি কর্মীকে পেটানোর অভিযোগ,অস্বীকার তৃণমূলের

0
15

মনিরুল হক,কোচবিহারঃ

এক বিজেপি কর্মীকে মারধরের অভিযোগ উঠল শাসক তৃণমূলের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে তুফানগঞ্জ শহরের ২ নম্বর ওয়ার্ডের বিবাদীবাগ রোডে।ওই ঘটনায় আহত হয়েছেন বিজেপির এক কর্মী সমর্থক।আহত অবস্থায় স্থানীয় লোকজন ওই বিজেপি কর্মীকে উদ্ধার করে তুফানগঞ্জ মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

Accusation of assault bjp workers
আক্রান্ত বিজেপি কর্মী।নিজস্ব চিত্র

ওই ঘটনার পর তুফানগঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়।ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।
পুলিশ সূত্রে জানা যায়, আক্রান্ত ওই ব্যক্তির নাম রাজেশ মণ্ডল (৩৬)।তাঁর বাড়ি তুফানগঞ্জ শহরের ১২ নম্বর ওয়ার্ডের বিদ্যাসাগর রোডে। অভিযোগ,রাজেশবাবুর ছেলে বিবেক মণ্ডল বিজেপির যুব মোর্চার তুফানগঞ্জ শহর মণ্ডল কমিটির সম্পাদক।এদিন বিবেক বিবাদীবাগ রোড দিয়ে যাওয়ার সময় তাঁকে তাড়া করেন কয়েকজন তৃণমূল কর্মী।কোন রকমে বিবেক সেখান থেকে পালিয়ে যান। তার কিছুক্ষণ পরেই বিকেকের বাবা রাজেশবাবু ওই পথ ধরে আসছিলেন। সেই সময় বেশ কয়েকজন তৃণমূল কর্মী তাঁর ওপর হামলা চালায় বলে অভিযোগ। স্থানীয়রা রাজেশবাবুকে উদ্ধার করে তুফানগঞ্জ মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

এদিন এবিষয় নিয়ে বিজেপির যুব মোর্চার তুফানগঞ্জ শহর মণ্ডল কমিটির সভাপতি প্রসেনজিৎ বসাক বলেন, “তৃণমূলের কিছু দুষ্কৃতী বাহিনী আমাদের যুব মোর্চার তুফানগঞ্জ শহর মণ্ডল কমিটির সম্পাদক বিবেক মণ্ডলকে তাড়া করে।সে সেখান থেকে কোন রকমে পালিয়ে বাঁচে।পরে ওই রাস্তা দিয়ে তার বাবা রাজেশ মণ্ডল আসছিলেন।সেই সময় তাকে তৃণমূলের দুষ্কৃতীরা মারধোর করে।সে বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছে তুফানগঞ্জ মহকুমা হাসপাতালে। আমরা আমাদের দলের পক্ষ থেকে তুফানগঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করি। পুলিশের কাছে আবেদন যারা প্রকৃত দোষী তাদের খুঁজে বের করে উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা করুক।”

যদিও সমস্ত অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছেন তৃণমূলের তুফানগঞ্জ শহর ব্লক কমিটির সভাপতি চান মোহন সাহা। তিনি বলেন,“বিজেপি বুঝে গেছে তাদের পায়ের তলার মাটি কোচবিহার জেলা থেকে সরে গেছে।

আরও পড়ুনঃ ডোমকলে ফের রাজনৈতিক হিংসা,বলি ১

তারা নিজেদের গোষ্ঠীদ্বন্দ অর্থাৎ দিলিপ ঘোষ ও মুকুল রায় গোষ্ঠীর মধ্যে বিবাদ তৃণমূলের উপর চাপিয়ে দিয়ে রাজনৈতিক ভাবে ফায়দা নেওয়ার চেষ্টা করছে। তাতে খুব বেশি একটা লাভ হবে না বলে মনে হয়। আর এবিষয়ে আমি হলোপ করে বলতে পারি যে ওই ঘটনার সাথে আমাদের দলের কেউ যুক্ত ছিল না।”

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91-9593666485