পাঁচ রাজ্যে নির্বাচনের আগে ইলেক্টরাল বন্ড স্কীমে স্থগিতাদেশের আর্জি এডিআর-এর

0
38

নিজস্ব সংবাদদাতা, ওয়েব ডেস্কঃ

পশ্চিমবঙ্গ, কেরালা, তামিলনাড়ু, আসাম ও কেন্দ্র শাসিত অঞ্চল পুদুচেরির বিধানসভা নির্বাচনের নির্ঘন্ট ঘোষণা হয়ে গিয়েছে। তার আগে নতুন করে ইলেক্টরাল বন্ড বিক্রিতে স্থগিতাদেশ দিয়ে এবিষয়ে পুরোনো মামলার রায় জানাক আদালত, আবেদন এডিআর-এর।

Representative image | newsfront.co
প্রতীকী চিত্র

অ্যাসোসিয়েশন ফর ডেমোক্র্যাটিক রিফর্মস মঙ্গলবার দেশের শীর্ষ আদালতে আবেদন জানায় চারটি রাজ্য ও একটি কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলে ভোট প্রক্রিয়া শুরুর আগে ইলেক্টরাল বন্ড স্কীম -২০১৮ সংক্রান্ত ঝুলে থাকা মামলাগুলির রায় জানাক সুপ্রিম কোর্ট এবং সে পর্যন্ত নতুন করে ইলেক্টরাল বন্ড বিক্রির ওপর স্থগিতাদেশ দেওয়া হোক। ইলেক্টরাল বন্ডের মাধ্যমে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলিকে যেসব সংস্থা বা ব্যক্তি আর্থিক সহায়তা দিয়ে থাকে তাদের নাম পরিচয় গোপন রাখা হয়।

এর আগে এই বিষয়ে তিনটি মামলা এখনও ঝুলে রয়েছে সর্বোচ্চ আদালতে। এডিআর এই মর্মে আদালতে আবেদন জানিয়েছে যে যত দ্রুত সম্ভব পুরোনো মামলাগুলির নিষ্পত্তি করুক আদালত এবং সে পর্যন্ত নতুন বন্ড বিক্রিতে স্থগিতাদেশ দেওয়া হোক।

আরও পড়ুনঃ ১.১৫ লক্ষ কোটি টাকার অনাদায়ী ঋণের হিসাব মুছে দিল ব্যাংক, জানাল কেন্দ্র

মামলার আবেদনে বলা হয়েছে,” আশঙ্কা করা হচ্ছে যে এইসব অনামী দাতাদের থেকে যে অর্থ পাবে রাজনৈতিক দলগুলি তা খরচ করা হবে পশ্চিমবঙ্গ, কেরালা, তামিলনাড়ু, আসাম ও পুদুচেরির নির্বাচনে বেআইনি ও অনৈতিক কাজে। সে কারণেই নতুন করে বন্ড বিক্রির প্রক্রিয়া বন্ধ করার নির্দেশ দিক সর্বোচ্চ আদালত।”

আরও পড়ুনঃ ডিজিটাল মিডিয়া নিয়ন্ত্রণের নামে স্বাধীনতা হরণ, অসন্তোষ প্রকাশ এডিটর্স গিল্ডের

ফিন্যান্স অ্যাক্ট ২০১৭-তে যেভাবে বেনামীতে ইলেক্টরাল বন্ড বিক্রির পথ প্রশস্ত করা হয়েছে তাকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে ২০১৭ সালে একটি মামলা দায়ের করে এডিআর।

পিটিশনে এডিআর স্পষ্টভাবে উল্লেখ করেছে যে ঠিক রাজ্যগুলির বিধানসভা নির্বাচনের আগে দুবার এইভাবে ইলেক্টরাল বন্ড বিক্রির ব্যবস্থা করেছে সরকার। এখনো পর্যন্ত ৬৫০০ কোটি টাকারও বেশি বন্ড বিক্রি হয়েছে এবং তার সিংহ ভাগ গেছে শাসকদলের কাছে।

ইলেক্টরাল বন্ড হলো টাকা লেনদেনের একটি মাধ্যম, রাজনৈতিক দলগুলিকে আর্থিক সাহায্য করার ব্যবস্থা। যেকোন ব্যক্তি বা সংস্থা তাঁর ইচ্ছেমত রাজনৈতিক দলের নামে এই বন্ড কিনতে পারেন, বন্ডের আর্থিক মূল্য যায় সেই রাজনৈতিক দলের কাছে। ২ জানুয়ারি, ২০১৮ কেন্দ্রীয় সরকার এই ইলেক্টরেল বন্ড স্কীমটি ঘোষণা করে।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91 94745 60584

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here