মুর্শিদাবাদের লালবাগ সদর ঘাটে দিলীপ ঘোষের প্রাতঃভ্রমণ ও ‘চায়ে পে চর্চা’

0
38

সজিবুল ইসলাম, মুর্শিদাবাদঃ

আজ সকালে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি দিলীপ ঘোষ প্রাতঃভ্রমণে লালবাগ কোর্ট এর সামনে থেকে বেরিয়ে শহর পরিক্রমা করে লালবাগ সদরঘাটে একটি চায়ের দোকানে “চায়ে পে চর্চা”তে মিলিত হন।  দীলিপবাবুর সঙ্গে প্রাতঃভ্রমণে উপস্থিত ছিলেন মুর্শিদাবাদ বিধানসভার বিধায়ক শ্রী গৌরী শংকর ঘোষ, সৌমেন দাস, সুজিত হালদার শহর বিজেপি র কর্মী ও সমর্থকবৃন্দ। দীলিপবাবু”চায়ে পে চর্চা”-র পর বাবুল সুপ্রিয়র টুইট সম্বন্ধে বলেন,’ উনি বড় বড় কথা বলছেন তাহলে শত্রুঘ্ন সিনহা কি করে ৩ লাখ ভোটে জিতল, বালিগঞ্জের লোক ওনার ওজন বুঝিয়ে দিয়েছেন। বালিগঞ্জে সুব্রত মুখার্জি কত ভোটে জিতে ছিলেন আর উনি কত ভোটে জিতেছেন?’  দিলীপ ঘোষ আরও বলেন যে, অহংকার করার জায়গা থাকা উচিত, ফালতু কথা বললে নিজের ওজন বাড়ে না বরং কমে।

নিজস্ব চিত্র

শ্যামনগরে অভিষেকের  সভা প্রসঙ্গে তাঁকে প্রশ্ন করা হয় যে, তবে কি এবার শ্যামনগর তৃণমূলের দখলে চলে যাবে! উত্তরে বিতর্ক এড়িয়ে দিলীপ ঘোষ বলেন ইলেকশন হলেই দেখা যাবে। হাইকোর্ট সম্পর্কে  অভিষেকের মন্তব্য নিয়েও প্রশ্ন করা হয় দিলীপ বাবুকে। উত্তরে দিলীপ ঘোষ বলেন,  ‘ওনাদের বিরুদ্ধে গেলেই রায় কেন্দ্রের হয়ে যায়, সমস্ত কোর্ট গুলো কে ভয় দেখিয়ে রেখেছেন, আমাদের বেল দেয় না। পুলিশ তো ওদের দল দাসে পরিণত হয়েছে আমাদের কর্মীদের নিজে থেকে কেস দিচ্ছে, সে যেখানেই যাক শ্মশানে মড়া পুরাতে গেলেও কেস খেতে হচ্ছে আমাদের কর্মীদের।  জন্মদিনের পার্টিতে গেলেও আমাদের কর্মীদের কেস খেতে হচ্ছে, এইতো হচ্ছে বাংলার তৃণমূলের দলদাস পুলিশ।‘  একশ দিনের কাজের টাকা কেন্দ্র দিচ্ছে না, প্রয়োজনে দিল্লী পর্যন্ত আন্দোলন করতে পারেন মমতা, মানুষের এই কথা শুনে এদিন দিলীপ ঘোষ বললেন,’দিদি হেঁটে একবার দিল্লি যান , শরীরটা ভালো থাকবে, একবার মোদির সঙ্গে দেখা করে আসবেন এটাই বাকি আছে। পশ্চিমবঙ্গ সবচেয়ে বেশি দুর্নীতিতে জড়িত ওনার পার্টির নেতা-মন্ত্রীরা দুর্নীতির সঙ্গে বিরাজমান।  দেখা যাচ্ছে মন্ত্রী থেকে নেতারা ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।‘

আরও পড়ুনঃ তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে সিপিআইএম-এ যোগদান জলঙ্গীতে

১০০ দিনের কাজের সবচেয়ে বেশি  টাকা পশ্চিমবঙ্গে দেওয়া হয় বলে তিনি জানান। তিনি আরো বলেন যে, তৃণমূল দল চলছে ওই টাকায়। নেতা-মন্ত্রীরা লুট করছে ওই একশ দিনের কাজের টাকা। জেসিবি দিয়ে বাঁধ তৈরি হচ্ছে আর মাইক ফুঁকে গ্রামের মানুষকে ডেকে টিপসই দিয়ে অর্ধেক টাকা নেতারা বাড়ি নিয়ে যাচ্ছে। এইতো হল বাংলার দিদির দল, যার ফলে দিদির নেতা-নেত্রী মন্ত্রীদের বিরুদ্ধে এখন দুর্নীতি কাটমানি, মানুষকে পুড়িয়ে মারবার অভিযোগ তুলছেন দিদির দলের লোকেরাই ,অন্য কেউ নয়। এমনটাই বললেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি দিলীপ ঘোষ। মুর্শিদাবাদ বিধানসভার বিধায়ক শ্রী গৌরী শংকর ঘোষ বলেন এরপর সকাল সাড়ে আটটার সময় মুর্শিদাবাদ পৌরসভার ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের চিড়াকুটি পাড়ায় সেবা কাজ এবং বস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন দিলীপ বাবু।  সাড়ে নটার সময় নসিপুর হল্ট স্টেশন পুনরায় চালুর জন্য ১৬ নম্বর ওয়ার্ড পরিদর্শন করবেন তিনি।  নসিপুর রেল ব্রিজ তৈরি হয়ে যাওয়া সত্ত্বেও কেন চালু হচ্ছে না  জানতে সাড়ে ১০টার সময় সেই স্থান পরিদর্শন করবেন তিনি এবং ১৪ নম্বর ওয়ার্ডে জনসংযোগে যোগ দেবেন  বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি শ্রী দিলীপ ঘোষ।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91 94745 60584

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here