রায়গঞ্জের জনসভায় কেন্দ্র সরকারকে তীব্র কটাক্ষ দীপার

0
35

তপন চক্রবর্তী,উত্তর দিনাজপুরঃ

Dipa insinuation central govt
নিজস্ব চিত্র

ভারতবর্ষে এমন চোর চৌকিদারের প্রয়োজন নেই।যে চৌকিদারের সহায়তায় হাজার হাজার কোটি টাকা দেশের বাইরে পাচার হয়ে যায়।বুধবার উত্তর দিনাজপুর জেলার রায়গঞ্জ লোকসভা আসনের জাতীয় কংগ্রেসের প্রার্থী তথা প্রয়াত প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রিয় রঞ্জন দাসমুন্সীর স্ত্রী দীপা দাসমুন্সী মহেন্দ্রগঞ্জ নাট মন্দির মাঠে নির্বাচনী প্রচারে এসে এই কথা বলেন।

Dipa insinuation central govt
নিজস্ব চিত্র

দীপা দেবী বলেন,’উত্তর দিনাজপুর জেলায় অনেক কাজ করার স্বপ্ন ছিল প্রিয়দার। ২০১৪ সালে ভোটে আমাকে হারিয়ে দেবার এক চক্রান্ত করেছিল।সেই চক্রান্তে আমার পরিবারের মানুষ সফল হয়েছিল।আমি জিতেও জিততে পারিনি।সামান্য ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হয়েছিলাম।আপনাদের সামনে আবার এসেছি।আমার বিশ্বাস আমাকে আপনারা ভালোবাসেন তাই আমাকে আশীর্বাদ করবেন যাতে প্রিয়দার অসমাপ্ত কাজ আপনাদের পরিষেবা দেবার জন্য করতে পারি।ভারতবর্ষে বিজেপি সরকার ২০১৪ সালে নির্বাচনে আসার পূর্বে মোদী বলেছিলেন ক্ষমতায় এলে প্রত্যেকের একাউন্টে ১৫ লক্ষ টাকা করে দেয়া হবে,বেকারদের জন্য দুই কোটি চাকরি দেবার পরিবর্তে কালাধন বের করার নামে,৫০০ও২০০০হাজার টাকা রাতারাতি বাতিল করে সাধারণ মানুষদের হয়রানির স্বীকার হয়েছে।কোথায় গেল সেই ১৫ লক্ষ টাকার হিসাব।জিএসটি চালু করে ব্যবসায়ীদের সমস্যার মধ্যে ফেলে দেওয়া হয়েছে শুধু তাই নয়,এর ফলে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম বৃদ্ধি হয়েছে।’
দীপা দাসমুন্সী বলেন, ‘এবার কেন্দ্রে কংগ্রেস পরিচালিত সরকার আসছে।মানুষ বিজেপির চালাকি বুঝতে পেরেছে।অনেকেই বলেছিল কংগ্রেস দেশ থেকে মুছে গিয়েছে।কংগ্রেস দেশ থেকে যে মুছে যায়নি তার প্রমান তিন তিনটি রাজ্যে ক্ষমতা দখল করে দেখিয়ে দিয়েছে।ক্ষমতা দখল করেই মাত্র তিন দিনের মধ্যেই চাষীদের কৃষি ঋণ মুকুব করে দিয়েছে।কংগ্রেস এবার নির্বাচনী ইস্তাহারে বলেছে নির্বাচনে জিতলেই নিম্ন আয়ের মহিলাদের মাসে ৬ হাজার টাকা প্রতিমাসে ও বছরে ৭২ হাজার টাকা করে দেওয়া হবে।দীপা দেবী বলেন শুনতে পাচ্ছি হাসপাতাল পাড়ায় যে টাউন হলটি পুরসভা করছিল সেটাকে নাকি ভেঙে ফেলা হবে।সরকারি অর্থে বানিয়ে সেই অর্ধ নির্মিত হলটি ভাঙা হলে কংগ্রেস তার প্রতিবাদ জানাবে।দীপা দেবী বলেন ভাঙার আগে বলতে হবে এই হলটি নির্মাণ কে করছিল।যিনি হলটি নির্মানের কাজ করছিলেন তিনি কেন প্রথম থেকে তা কর্তৃপক্ষকে জানায় নি।যিনি নিম্ন মানের কাজ করে প্রচুর অর্থ করলেন তিনার মুখে এসব কথা কোন ভাবেই মানায় না।মানুষ এর হিসাব সঠিক সময়েই নেবে বলে দীপা দাসমুন্সী জানান।

আরও পড়ুনঃ কেন্দ্র সরকারকে তীব্র কটাক্ষ দেবগৌড়ার

Dipa insinuation central govt
সভামঞ্চে দীপা দাসমুন্সি। নিজস্ব চিত্র

দীপা দাসমুন্সী মহেন্দ্রগঞ্জ নাটমন্দিরে জনসভা করে কালিয়াগঞ্জের মারোযারী সম্প্রদায়কে নিয়ে একটি বৈঠক করেন।এরপর তিনি সেখান থেকে তিলগাঁও ও মুস্তাফানগর গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় প্রচারের উদ্দেশ্য রওনা দেন।রায়গঞ্জে কংগ্রেস সংগঠন ইতিমধ্যে কিছুটা বাড়তি অক্সিজেন পাচ্ছে বলে রাজনৈতিক মহলের ধারণা।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91-9593666485