বেআইনি ভাবেই চলছে ছোটো ইলিশের বিকিকিনি

0
60

সিমা পুরকাইত,দক্ষিন ২৪ পরগনাঃ

illegal fish sale | newsfront.co
নিজস্ব চিত্র

প্রশাসনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে দেদার বিকিকিনি চলছে ছোট ইলিশ।৫০০ গ্রামের নিচে মাছ ধরা নিষেধাজ্ঞা জারি থাকলেও।​১০০ গ্রাম থেকে ২০০ গ্রাম কখনো আবার ৪ ইঞ্চি থেকে ৬ ইঞ্চি ইলিশ বিক্রিতে ব্যস্ত আরতদারেরা।যে ইলিশ বেআইনি ভাবে বিক্রি হচ্ছে তার দাম আবার আকাশ ছোঁয়া।

মনোরঞ্জন মন্ডল, স্থানীয় বাসিন্দা।নিজস্ব চিত্র

কখনো স্থায়ী জেটি ঘাট,কখনো আবার অস্থায়ী নদীচর থেকে প্রশাসনের নাগালে ক্যারটের পর ক্যারট মাছ বিক্রিতে মোহরায় বসেছে খুচরা থেকে পাইকারি ব্যবসায়ীদের মধ্যে।

সাধারনের মানুষের চোখের ছোট ইলিশ কখনো চন্দনা ইলিশ নাম ধরে বিক্রি করছে অর্থ লোভি ব্যবসায়ীরা।প্রশাসনের সামনে খয়রা মাছ কখনো ক্যামেরার সামনে কোকিল মাছ বলে দোষ এরাচ্ছেন অনেকে।

দীপু সামন্ত,খুচরো মাছ ব্যবসায়ী।

অনেকে আবার মুখ লুকাচ্ছেন।সবমিলিয়ে নামখানার পাইকারি বাজার,কাকদ্বীপের পালবাজার ডায়মন্ড হারবারের নগেন্দ্র বাজারে​।নামখানার নারায়নপুর পাইকারি বাজার।গঙ্গাসাগরের বেনুবন অস্থায়ি অকসান বাজারে দেদার চলছে ছোট ইলিশ।সরকারি সচেতনতাকে বাদ দিয়ে ক্ষমতার বলে চলছে অসাধু ব্যবসা দাবি এলাকাবাসির।

মনিশঙ্কর পাণ্ডা,স্থানীয় উপপ্রধান।নিজস্ব চিত্র

সরকারি মতে বছরের দু’মাস জুন জুলাই ধরা যাবেনা ইলিশ।এসময়টা মাছের প্রজনন কাল।ছোটমাছ মিস্টিজলে আসে বর্ষাকালে।সরকারি ভাবে নিশেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে ৫০০ গ্রামের নিচে মাছ ধরা যাবে না। অন্যদিকে ছোট ফাঁদের জাল নিয়ে সমুদ্রে পারি দেওয়া যাবে না মৎসজীবীদের।ধরা পরলে মোটা টাকা জরিমানা সঙ্গে বাজেয়াপ্ত করা হবে মরশুমের ট্রলার।

নিজস্ব চিত্র

কে শুনছে কার কথা।টাকা আর ক্ষমতার বলে সব বদলে যাচ্ছে সবকিছু।ফলে হারিয়ে যাচ্ছে বড় ইলিশ।বাজারে বিকোচ্ছে খোকা ইলিশের বদলে ছোট চন্দনা ইলিশ।যা খোকা ইলিশ বলে পরিচিতি পাচ্ছে বঙ্গোপসাগরে।অর্থলোভি ব্যবসায়ীদের​ দৌলতে যে আগামী দিন ইলিশ হারাবে তা মনে করছেন অনেকে।

গুরুপদ দাস,মাছ ব্যবসায়ী

আরও পড়ুনঃ ট্রলার থেকে পরে নিখোঁজ মৎসজীবী

একদিকে দুর্যোগময় আবহাওয়া পেয়েও প্রশাসনের সতর্কিকরনে সমুদ্রে মাছ ধরতে না যাওয়া।অন্যদিকে ছোট ইলিশ ধরাই বঙ্গোপসাগরে​ মিলছেনা রুপলি শস্য।মাথায় হাত ট্রলার থেকে টলি ব্যবসায়ীদের।কপালে ভাঁজ মৎসজীবী থেকে পাইকারি ও খুচরা ব্যবসায়ীদের। ফলে চলতি বছরে ক্ষতির মুখে মাছ ব্যবসায়ী আরতদারেরা।দুধের স্বাদ ঘোলে মেটাতে​ এখন ভরসা ছোট খোকা ইলিশের।

নিজস্ব চিত্র

১৫ই জুন থেকে সমুদ্রে মাছ ধরতে পারি দিয়েছিল সুন্দরবনের কয়েক হাজার মৎস্যজীবী। ভরা মরশুমে ইলিশের ঝাঁকের সন্ধানে জাল ফেলেছেন বঙ্গোপসাগরে।কিন্তু ইলিশের ঝাঁকের দেখা মেলেনি।

সব ভুলে রান্না পূজায় জালে মাছ পেয়ে ঘুরে দাঁড়াতে মড়িয়া মাছ ব্যবসায়ীরা। প্রশাসনের নাগালে ছোট ইলিশের রমরমা ব্যবসা রুখতে পারে বড় ইলিশ দাবি আরতদারদের । প্রশাসনের হস্তক্ষেপে আদৌ কতটা বন্ধ হয় ছোট চন্দনা ইলিশের রমরমা কারবার।এখন সেটাই দেখার।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91 94745 60584

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here