উচ্চমাধ্যমিকে প্রথম রুমানা সুলতানা চমকে দিলেন সর্বভারতীয় মেডিক্যালেও, প্রাপ্ত নম্বর ৯৯.৫ শতাংশ

0
82

জৈদুল সেখ, মুর্শিদাবাদঃ 

উচ্চমাধ্যমিকের রেজাল্টে সবাইকে চমকে দিয়েছিলেন মুর্শিদাবাদের কান্দির রুমানা সুলতানা। নিট (NEET) অর্থাৎ ন্যাশনাল এলিজিবিলিটি কাম এনট্রান্স টেস্টেও সাফল্যের সঙ্গে উত্তীর্ণ হলেন রুমানা। তাঁর ব়্যাংক হয়েছে ১,০৫৭। প্রাপ্ত নম্বরের শতাংশ ৯৯.৫। তাঁর সাফল্যে উচ্ছ্বসিত পরিবার তথা কান্দিবাসী।

প্রসঙ্গত রুমানা সুলতানা উচ্চমাধ্যমিকে প্রথমে হওয়ার পর নিন্দুকেরা সোশ্যাল মিডিয়ায় অপ্রাস‌ঙ্গিক মন্তব্য করে জলঘোলা করে পরীক্ষা না দিয়ে প্রথম হওয়াকে ব্যাঙ্গ করেছিল। তাদের সঠিক জবাব রুমানার জাতীয় স্তরের NEET পরীক্ষায় ফিজিক্স, কেমিস্ট্রি ও বায়োলজি তিনটে বিষয়েই ৯৯.৫% প্রাপ্ত নম্বর। তাছাড়া রুমানাকে কেন্দ্র করে সংসদ সভাপতি বিতর্কে জড়ালেও সুলতানাকে এবিষয়ে কোনও মন্তব্য করতে দেখা যায়নি। কারণ তাঁর ধ্যান ছিল শুধুমাত্র পড়াশোনা। রুমানা সুলতানা লক্ষ্য ছিল ডাক্তার হওয়া। সেই দিকে আরও এক ধাপ এগিয়ে গেলেন রুমানা। উচ্চমাধ্যমিকের পর রুমানা সুলতানার নিট পরীক্ষাতেও প্রশংসনীয় ফলাফলে উচ্ছ্বসিত কান্দি তথা মুর্শিদাবাদবাসী। রুমানা সুলতানার পিতা রবিউল আলম জানান ” গত এক সপ্তাহ আগে রুমানা মুম্বই ইউনিভার্সিটিতে অটোমিক এন্যার্জি বিভাগে ভর্তি হয়েছে। তবে সুযোগ পেলে এইমসে পড়তে চায় রুমানা সুলতানা।”

আরও পড়ুনঃ অসহায় পরিবারকে খাদ্য সামগ্রী দিয়ে সাহায্য করলেন জলঙ্গি ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস (দক্ষিণ) সভাপতি রাকিবুল ইসলাম।

উল্লেখ্য ২০২১ সালে অতিমারী করোনা আবহে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা হয়নি। মাধ্যমিক এবং একাদশ শ্রেণির নম্বরের ভিত্তিতে মূল্যায়ন করেছে উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ। উচ্চমাধ্যমিকে রুমানা পেয়েছিল পাঁচশোর মধ্যে ৪৯৯। তাঁর রেজাল্ট ঘোষণা করতে গিয়ে সংসদ সভাপতি বলেছিলেন, ”প্রথম হয়েছে রুমানা, প্রাপ্ত নম্বর ৪৯৯, এক মুসলিম কন্যা।” এই বিতর্কিত মন্তব্যের জেরে পরবর্তীতে সংসদ সভাপতির পদ থেকে মহুয়া দাসকে সরতে হয়েছিল ।

আরও পড়ুনঃ করোনা সচেতনতাই থিম মুর্শিদাবাদের জাতীয় সংঘের কালিপুজোতে

মুর্শিদাবাদের কান্দি পুরএলাকার এগারো নম্বর ওয়ার্ডের হোটেল পাড়া বাসিন্দা রুমানা সুলতানা কান্দি মণীন্দ্রচন্দ্র গার্লস স্কুলের ছাত্রী। শিক্ষক পরিবারের সন্তান রুমানা। বাবা রবিউল আলম ভরতপুর থানার অচলা বিদ্যামন্দিরের প্রধান শিক্ষক। মা সুলতানা পারভীন ভরতপুরের গয়সাবাদ অচলা বিদ্যামন্দিরে শিক্ষিকা। ফলে ছোটবেলা থেকে জ্ঞানার্জনে আগ্রহের একটা পরিবেশ ছিলই। রুমানা নিজেও পড়াশোনা করেছে ভালবেসে, স্রেফ পরীক্ষায় ভাল ফল করার প্রতিযোগিতামূলক মনোভাব নিয়ে নয়। আর তার ফল পেয়েছে বারবার। ২০১৯ সালে মাধ্যমিক পরীক্ষায় ৬৮৬ নম্বর পেয়ে রাজ্যের মধ্যে পঞ্চম স্থান দখল করেছিল রুমানা। বিজ্ঞান বিভাগে ভরতি হওয়া ছাত্রীর লক্ষ্য ছিল, উচ্চ মাধ্যমিকে আরও ভাল ফল করার। লক্ষ্য পূরণ হয়েছে রুমানা সুলতানার। 

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91 94745 60584

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here