প‌লিথিন মুক্ত সমাজ গড়‌তে অ‌ভিনব উ‌দ্যোগ স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার, খু‌শি সুন্দরবনবাসী

0
54

সিমা পুরকাইত, দক্ষিণ ২৪ পরগণাঃ

সভ্যতার চাকা যত দ্রুতগতিতে সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে, ততই জীবনযাত্রার মান পাল্টে যাচ্ছে। সাধারণ মানুষ সকালে ঘুম থেকে উঠেই হাতের নাগালে পাচ্ছে সব কিছু। কিন্তু সভ্যতা যত উন্নতির দিকে যাচ্ছে ততই দূষণের পরিমাণ বাড়ছে সমাজে। সমাজকে দূষণ মুক্ত করতে, প্লাস্টিক মুক্ত করার পাশাপাশি পলিথিন মুক্ত সমাজ গড়ে তোলার উদ্যোগ নিল ‘সুন্দরবন সোশ্যাল ডেভলপ‌মেন্ট সেন্টার’ (এসএসডিসি) না‌মে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন।

পদযাত্রা। নিজস্ব চিত্র

অভিনব সচেতনতা শিবির আয়োজন করে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের কর্মকর্তারা। মন্দিরবাজার ব্লকের ১৪ স্কুলের পড়ুয়াদের পাশাপাশি শিক্ষক-শিক্ষিকা, স্বনির্ভর গোষ্ঠীর ৪০০ থেকে ৫০০ মহিলা, ২৫ ক্লাবের শতাধিক সদস্য, স্টুডেন্ট ফোরামের সদস্য, যুব-সংগঠন, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সমস্ত সদস্যরা। এদিন মন্দিরবাজার ব্লকের বিডিওকে নিয়ে পথমিছিলের মধ্য দিয়ে সচেতনতা শিবিরের আয়োজন করা হয়।

প্লাস্টিক মুক্ত সমাজ গড়ার পক্ষে সচেতনতামূলক পদযাত্রা। নিজস্ব চিত্র

মন্দিরবাজার ব্লকের চাঁদপুর, চৈতন্যপুর, ঘাটেশ্বর, বিজয়গঞ্জ, দয়রামপুর প্রভৃতি এলাকা থেকে সচেতনতা মিছিলে যোগ দিতে আসেন বহু মানুষ। বিজয়গঞ্জ বাজারের নট্টের মাঠ থেকে শুরু হয় মিছিল । নেতৃত্ব দেন ‘সুন্দরবন সোশ্যাল ডেভলপমেন্ট সেন্টারের’ সম্পাদক ভক্ত প্রসাদ পুরকাইত, সভাপতি গোপাল প্রামাণিক।
এছাড়াও সচেতনতায় পা মেলান বিডিও মন্দির বাজার, সমাজসেবী ডঃ শশধর পুরকাইত, ডঃ সুভাশিষ হালদার, ডঃ সুদীপ্ত রায়, শ্রীমন্ত মন্ডল, দিলীপ বৈদ্য প্রমুখ।

লোহার ডাস্টবিন। নিজস্ব চিত্র

সচেতনতায় যোগ দিতে এসে পড়ুয়াদের দাবি, গ্রামে-গ্রামে পাড়ায়-পাড়ায়, বাড়িতে-বাড়িতে প্লাসটিক ব্যবহার কমাতে হবে। মিছিলের পর সভার আয়োজন করা হয় ‘সুন্দরবন সোশ্যাল ডেভল্পমেন্ট সেন্টারের’ প্রাঙ্গনে। সেখানে স্কুল পড়ুয়াদের হাতে লোহার খাঁচার ডাস্টবিন বাক্স তুলে দেওয়া হয় সংগঠনের তরফে।

প্লাসটিক মুক্ত সমাজ গড়া আমাদের সবার একটা অঙ্গীকার। নিজেদের বাঁচতে আগামী প্রজন্মকে সুস্থ জীবন গড়তে অবিলম্বে প্লাসটিক-পলেথিন মুক্ত সমাজ গড়তে হবে। সেটাকে পাথেয় করেই এই প্রয়াস—দাবি এসএসডিসি সম্পাদক ভক্ত প্রসাদ পুরকাইতের।

এসএসডিসি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সভাপতি গোপাল চন্দ্র প্রামাণিক জানান, পঞ্চাশ মাইক্রোনের নিচে যে প্লাসটিক বাজারে বিক্রি হচ্ছে সেগুলি অভিযান চালিয়ে বন্ধ করতে হবে অবিলম্বে। পড়ুয়াদের দিয়ে শুরু হয়েছিল সেই কাজ । এবার লক্ষ্য স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মহিলাদের দিয়ে গ্রামে গ্রামে প্রতিটি পাড়ায়-পাড়ায় এই কর্মসূচি অভিযান চালানো।

জানা গেছে, জমা হওয়া প্লাসটিকগুলি একত্রিত করে কলকাতায় রিসাইক্লিং করা হবে। ইতিমধ্যে মন্দিরবাজার ব্লকে বেশ কয়েকটি স্কুলে প্লাসটিক-পলিথিন ফেলার জন্য লোহার খাঁচা দেওয়া হয়েছে। এগুলি পেয়ে খুশি পড়ুয়ারা।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91-9593666485