মাটির গন্ধ হারালো কাপাসডাঙ্গা

0
179

কাজীনূর জগত শেঠ,নিউজফ্রন্ট,মুর্শিদাবাদ:

অবশেষে বিলীন হতে চলেছে কাপাসডাঙ্গা গ্রামের অন্যতম ঐতিহ্য। পারিবারিক সম্পদ বন্টনের জেরে ভেঙে ফেলা হচ্ছে প্রায় ২৫০ বছর আগের এই মাটির বাড়ি।

যতদূর জানা যায় মৃত আব্দুল ওয়াহাব সেখের সন্তানদের মধ্যে বটোয়ারা সুত্রে ভেঙে ফেলা হচ্ছে এই ঢিবি। ২০০০ সালের বন্যাতে বাড়িটির একটি অংশ ধ্বংসপ্রাপ্ত হলেও পরবর্তীকালে বাকি অংশটুকু মেরামত করে বসবাস করে যাচ্ছিল ওই পরিবার। দূর দূর থেকে লোকেরা এসে ভিড় জমাতো বাড়িটিকে দেখে। শুধু এলাকার নয় শহরে থেকে আসা বহু মানুষের কাছে বিস্ময় ছিল এটি। মুর্শিদাবাদ জেলার বেলডাঙ্গা থানা এলাকার কাপাসডাঙ্গা গ্রামের নাম হয়তো সবার অজানা। স্থানীয় ষষ্ঠিতলা এলাকার মানুষের কাছে যখন আমাদের লোক এসে পৌছাল তখন এলাকাবাসীর চোখে মুখে আবেগ আর হতাশা ছিল অবাক হওয়ার মতোই।

এদিন সকাল থেকেই এসে মানুষের ভিড় জমতে থাকে। ভিড় করা মানুষের সারি ঘরটির মাটি হাতের মুঠোতে নাড়তে থাকে আর প্রাচীনত্বের ঘ্রাণ নিতে থাকে। বাড়ি ভাঙ্গা দেখতে এসে মানুষ ছায়ায় আশ্র‍য় নিতে জড়ো হয় পাশের একটি পাকুড় গাছের নীচে। যেটি গ্রামের অন্যতম আর একটি প্রাচীন ঐতিহ্য। লোকমুখে শোনা গেল, গাছটির বয়স বাড়ির বয়সের দিগুণ হবে। এলাকাবাসী ও কাপাসডাঙ্গা অগ্রগামী ক্লাব, জাগরণ মঞ্চ সম্পাদক তাজমত সেখের কথায়, মৃত আব্দুল ওয়াহাব সেখের ঐ বাড়িটি আমাদের কাছে বিশেষ গুরুত্ববহন করতো। ইতিহাসের পাতাকে সহজে বোধগম্য হতে দৃষ্টান্তমূলক সাহায্য করতো। এছাড়া বাড়ীটিকে দেখতে আসা মানুষের জমায়েত এবং তাদের কৌতুহল দেখে খুব মজা পেতাম। আব্দুল বাসার এর মতে, বাড়িটি খুব পুরাতন। কবেকার তা সঠিকভাবে বলা যায়না। মেরামতের অভাবে নষ্ট হয়ে গেল। তবে বর্তমানে যা অবস্থা হয়ে গেছিল, তাতে যে কোনো মূহুর্তে দুর্ঘটনা হতে পারত। যদি সঠিক পরিচর্যা হত তাহলে অন্য ব্যাপার ছিল, কিন্তু এখন যা অবস্থা হয়েছিল, তাতে ঘরটি ভেঙে ফেলার সিদ্ধান্ত প্রশংসনীয়।

নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91 94745 60584

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here