শশী কাপুর নেই, ভুবন ভোলানো সেই হাসি তবু অমলিন

    0
    134

    শশী কাপুর নেই, ভুবন ভোলানো সেই হাসি তবু অমলিন-ডঃ মানবেন্দ্রনাথ সাহা

    হিন্দি সিনেমার প্রখ্যাত অভিনেতা শশী কাপুর প্রয়াত। গত ৪ ডিসেম্বর বিকেলে মুম্বাই-এর কোকিলাবেন হাসপাতালে কিডনি ও লিভারজনিত অসুখে তাঁর মৃত্যু হয়। দীর্ঘ দিন ধরে তিনি অসুস্থ ছিলেন। বিগত তিন বছর হুইল চেয়ার ছিল তাঁর চলার অবলম্বন। মৃত্যুকালে।তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৯।

    সমস্ত ছবিই-সংগৃহীত

    বিগত শতাব্দীর ছয়ের দশক থেকে নয়ের দশক পর্যন্ত তিনি অভিনয় করেছেন প্রায় ১৬১ টি ছবিতে। ১৯৩৮ -এর ১৮ মার্চ কলকাতায় তাঁর জন্ম। পিতা পৃত্থীরাজ কাপুর। মা রমা কাপুর। ছেলেবেলার নাম বলবীর রাজ কাপুর। পিতার তৃতীয় সন্তান। রাজ ও সাম্মী কাপুর তাঁর দুই দাদা।
    শশী কাপুর বিয়ে করেন ইংল্যান্ডের থিয়েটার পরিবারের মেয়ে অভিনেত্রী জেনিফার ক্যান্ডেলকে। জেনিফার ও শশীর তিন সন্তান — করণ, কুণাল ও সঞ্জনা কাপুর। জেনিফার দুরারোগ্য ক্যানসারে মারা যান মাত্র ৫১ বছর বয়সে।
    বলিউড সিনেমা নয়, শশী কাপুরের প্রথম ভালোবাসা থিয়েটার। সেই ভালোবাসার আবেগ নিয়ে শশী ও জেনিফার মুম্বই -এ গড়ে তোলেন পৃত্থী থিয়েটার

    বাবার পরিচালিত থিয়েটার দিয়ে তাঁর অভিনয়ের শুরু। পরে আগ, আওয়ারা, সরগম প্রভৃতি ছবিতে দাদা রাজ কাপুরের কিশোরবেলার ভূমিকায় অভিনয় করেন। এর পর তিনি শুরু করেন সহকারী পরিচালকের কাজ। সেটি হলো সুনীল দত্তের ডেবিও ছবি পোস্ট বক্স ৯৯৯ ।
    এর পর ছয়ের দশকে ১৯৬১ তে তাঁর প্রথম ছবি রিলিজ করে। যশ চোপড়া পরিচালিত সেই ছবির নাম ধরমপুত্র। নায়িকা মালা সিনহা। নায়ক শশীরাজ এখন থেকে শশী কাপুর। এই বছরেই তিনি হাউস হোল্ড নামে একটি ইংরেজি ছবিতে অভিনয় করেন।
    দুটি ছবিই নায়ক-অভিনেতা হিসেবে যথেষ্ট পরিচিতি তাঁকে এনে দেয়।

    এই কয়েক বছরে এক এক করে মুক্তি পেতে থাকে : চার দিওয়ারি, মেহেন্দি লগে মেরে হাত, শেক্সপিয়ারওয়ালা( ইংরেজি)। অভিনেত্রী নন্দার সঙ্গে তাঁর রোমান্টিক জুটি দারুণ হিট করে যায়। যব যব ফুল খিলে (১৯৬৫)তার নিদর্শন। এছাড়াও রাজা সাব, নিদ হমারি খাব তুমারি উল্লেখ্য। যব যব ফুল খিলে-র বাণিজ্যিক সফলতা ধরে সাতের দশকে শশী বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ ছবিতে অভিনয় করলেন। সরলতা, অমলিন হাসি, দ্রুত কথা বলার ঢং, ছেলেমানুষি পাগলামো আর তার সঙ্গে অভিনয় দক্ষতা সেই ছবিগুলিকে ব্যাপক বাণিজ্যিক পরিসর দিল। অনেক ছবিতে তিনি একক নায়ক, যেমন : শর্মিলি, চোর মাচায়ে শোর, আ গলে লগ যা, মুক্তি প্রভৃতি। আবার অনেকগুলোতে কোস্টার, যেমন : দিওয়ার, সুহাগ, ত্রিশুল, কভি কভি,কালা পাত্থর, শান প্রভৃতি।
    নন্দা, শর্মিলা ঠাকুর, রাখি, হেমা মালিনি, জিনত আমন, পরভিন বাবি, স্মিতা পাতিল, নীতু সিং, বিদ্যা সিনহা রেখা প্রমুখ অভিনেত্রীদের সঙ্গে চুটিয়ে অভিনয় করেছেন।
    বাণিজ্যিক বিনোদন ছবির বাইরে থিয়েটারে তিনি যেমন নিয়মিত অভিনয় করেছেন তেমনি সিরিয়াস ছবি প্রযোজনা করেছেন ও তাতে অভিনয় করেছেন। সেই অভিনয় কিন্তু মূল ধারার চেয়ে স্বতন্ত্র। গোবিন্দ নিহালনির বিজেতা, শ্যাম বেনেগালের জুনুন, রমেশ শর্মার নিউ দিল্লি টাইমস, গিরিশ করনাডের উৎসব তার মধ্যে উল্লেখ্য। অপর্ণা সেনের থার্টিসিক্স চৌরঙ্গি লেন, বিজেতা, উৎসব, জুনুন তাঁর প্রযোজিত ছবি। ভারত – রাশিয়ার যৌথ প্রকল্পে তিনি অজুবা ছবিটি পরিচালনা করেন। এটি তাঁর একটি ব্যর্থ প্রয়াস।
    অমিতাভ বচ্চন ও শশী কাপুর জুড়ি বলিউডে সফল। এরা কখনো ভাই, কখনো বন্ধু। দিওয়ার থেকে যার সূচনা। দিওয়ার ছবিতে তাঁর বলা মেরে পাস মা হ্যায় আজও জনপ্রিয় একটি সিনেমা সংলাপসিলসিলা, কভিকভি, কালা পাত্থর, ত্রিশূল সুহাগ, নমকহলাল, শান ছবিতে অভিনয়ের পারস্পরিক দক্ষতায় চরম সফল। অমিতাভের অ্যাংরি ইমেজের পাশে তাঁর শান্ত সমাহিত মিস্টি অভিনয় দর্শক চিরকাল মনে রাখবে। আর তার সঙ্গে কাপুরসুলভ খ্যাপামোও ভোলা যাবেনা।
    আটের দশকের শেষে ও নয়ের দশকে শশী কিছু গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছেন। সেগুলি চরিত্র অভিনেতা হিসেবে। যেমন সিন্দুর, ইজাজত, ঘুঙ্গরু, অলগ অলগ, মুহাফিজ, জিন্নাহ( ১৯৯৮) তাঁর অভিনীত শেষ ছবি। মুহাফিজের(১৯৯৪) অভিনয় তাঁকে জাতীয় পুরস্কার এনে দেয়।
    শশী কাপুর অভিনয় ও ভালো ছবি প্রযোজনার জন্য তিনবার জাতীয় পুরস্কার, একাধিকবার ফিল্মফেয়ার ও বি. এফ.জে, অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন। পদ্মবিভূষণ ছাড়াও ভারতীয় চলচ্চিত্রে সামগ্রিক অবদানের জন্য দাদাসাহেব ফালকে পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন।

    আরেকটি তথ্য দিতে গিয়ে পরিচালক সন্দীপ রায় জানিয়েছেন : শশী কাপুরের সঙ্গে কলকাতার টান শুধু শহর, প্রেম বা স্মৃতির জন্য নয়। বাঙালির একান্ত আপন ফেলুদাও হয়েছিলেন শশী। ১৯৮৬ সালে সন্দীপ রায় পরিচালনা করেছিলেন কিসসা কাঠমান্ডু কা ধারাবাহিক।
    শশী কাপুর মানেই আদ্যপান্ত এক মিষ্টভাষী ভালোমানুষ, সুজন।প্যাশোনেট, ভদ্রলোক। তারকাসুলভ অহংকার তাঁর ছিলনা, সহজেই সাধারণ মানুষে সঙ্গে মিশে যেতে পারতেন। থিয়েটার ও ভালো সিনেমার জন্য সিরিয়াস উদ্যোগ নিতেন।
    হিন্দি মূল ধারা ও ব্যতিক্রমী সিনেমার ধারা দুটোতেই তিনি আলোচিত হবেন। এটা ঠিক অনেক ভুল ছবি তিনি নির্বাচন করেছেন আবার মুক্তি, সত্যম শিবম সুন্দরম, নিউ দিল্লি টাইমস, বিজেতা, মুহাফিজের মতো ছবিতেও তিনি অভিনয় করেছেন। কখনো রোমান্টিক চরিত্রে, কখনো কমেডি ড্রামা আবার কখনো সিরিয়াস চরিত্রে অভিনয় করেছেন। সবেতেই সেই চেনা মানুষটি। দর্শকের সংযোগ করতে অসুবিধে হয়নি। যেখানে তিনি সংলাপ কম বলেছেন সেখানে চির অমলিন সেই হাসি, যেমন : ইজাজত ছবির শেষ দৃশ্যে মহেন্দ্রকে চিনতে পেরে রহস্যময় হাসি। আর তার মধ্যে আমৃত্যু বাস করেছে এক ভদ্র মানুষ। পেজ থ্রিতে যার নাম বিরল। ব্যক্তিজীবনেও শশীজি সেই মানবিক সত্তাকে বহন করে গেলেন হাসি মুখে। তাঁর মৃত্যু শুধু তাই সিনেমার বিয়োগ নয়, মানবিক মুখের এক মহা বিয়োগ। শশী কাপুরকে আমরা মনে রাখবো সেই অমলিন হাসির ভিতর লুকিয়ে থাকা কষ্টদীর্ণ এক মানুষ অভিনেতা রূপে।
    অনেক কান্নাও রেখে গেলেন প্রিয় দর্শক, সহকর্মীদের মনে। সেটাই কি ঝরে পড়লো সান্তাক্রজেরর শ্মশানে মুম্বই-এ শীতের অকাল বর্ষণে? কে জানে…

    নিউজফ্রন্ট এর ফেসবুক পেজে লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন
    WhatsApp এ নিউজ পেতে জয়েন করুন আমাদের WhatsApp গ্রুপে
    আপনার মতামত বা নিউজ পাঠান এই নম্বরে : +91 94745 60584

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here